বিশ্বজুড়ে উচ্চ রক্তচাপ একটি নীরব ঘাতক হিসেবে পরিচিত। বাংলাদেশেও বিপুল সংখ্যক মানুষ উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন। ১৭ মে ‘বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস’। এ সমস্যা নিয়ে সচেতনতা বাড়াতে দিবসটি বিশ্বজুড়ে পালিত হয়।
সমীক্ষা জানাচ্ছে, দেশে প্রতি ৫ জনে অন্তত একজন উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন। তবে ৫৯ শতাংশ রোগীই জানেন না যে, তারা গুরুতর এই সমস্যায় ভুগছেন।

মানুষের স্বাভাবিক রক্তচাপ হলো ১২০/৮০ মিলিমিটার পারদ চাপ। সাধারণত রক্তচাপ যদি স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি থাকে, তাহলে তাকে উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশন বলা হয়।

অর্থাৎ রক্তচাপ যখন ১৪০/৯০ মিলিমিটার পারদ চাপের বেশি হয়, তখন ওই অবস্থাকে উচ্চ রক্তচাপ বলা হয়। উচ্চ রক্তচাপ বা হাইপারটেনশনকে অনেক সময় অনেকেই ‘প্রেশার’ হিসেবে অভিহিত করেন।

যে কারও যখন তখনই প্রেশার বেড়ে যেতে পারে। যদিও বিভিন্ন কারণে রক্তচাপ বেড়ে যেতে পারে। তবে স্থূলতা, অলস জীবনযাপন, অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া ইত্যাদি কারণে কমবয়সীদের মধ্যেও বেড়ে যেতে পারে রক্তচাপ।

তবে হঠাৎ উচ্চ রক্তচাপ হলে দ্রুত কী করণীয়? এ বিষয়ে কী করণীয় তা জানিয়েছেন রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ও মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ডা. সামিউল আউয়াল সাক্ষর।

যদি কারো রক্তচাপ হঠাৎ খুব বেশি বেড়ে যায় সেক্ষেত্রে রোগী যদি দাঁড়িয়ে থাকেন, তাহলে অবশ্যই বসে অথবা শুয়ে পড়তে হবে। একই সঙ্গে তার বিশ্রামের ব্যবস্থা করতে হবে।

চাইলে মাথায় পানি দিয়ে বা বরফ সেঁক দিতে পারেন। অনেকে তেঁতুলের শরবত পান করেন। তবে এগুলোর মাধ্যমে রক্তচাপ কমে না।
এক্ষেত্রে অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। প্রয়োজনে তিনিই দেবেন ওষুধ। তবে নিজে থেকে রক্তচাপ কমানোর জন্য কোনো ওষুধ গ্রহণ করবেন না।