লালমনিরহাটের কয়েকদিনের টানা তাপপ্রবাহ ও তীব্র গরমের অবসান ঘটিয়ে অবশেষে নামলো স্বস্তির বৃষ্টি। জেলা জুড়ে বিভিন্ন স্থানে থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। কমেছে তাপমাত্রা।

শুক্রবার (৯ জুন) সকাল সাড়ে ৭টা থেকে লালমনিরহাট সদর, আদিতমারী, কালীগঞ্জ, হাতীবান্ধা ও পাটগ্রাম উপজেলায় শুরু হয় ঝড় ও বৃষ্টি। এতে জনজীবনে স্বস্তি ফিরেছে।

 

কালীগঞ্জ উপজেলার দলগ্রাম এলাকার বাসিন্দা মুরশিদুল ইসলাম বলেন, প্রচণ্ড গরম আর রোদের ১০ দিন পর বৃষ্টি নামলো। বৃষ্টিতে অনেক মানুষ উপকৃত হলো।

হাতীবান্ধা উপজেলার কৃষক শফিকুল ইসলাম বলেন, আমন ধান লাগানোর জন্য বীজতলা করেছি। বৃষ্টি না হওয়ায় ধান গজায়নি। কিছু কিছু গজালেও রোদের তাপে মরে যাচ্ছে। এখন বৃষ্টি হলো হয়তো বীজতলা একটু ভালো হতে পারে।
কালীগঞ্জ উপজেলার তুষভান্ডার ইউনিয়নের বাসিন্দা রাহিবুল ইসলাম টিটুল বলেন, ১০-১২ দিনের রোদের তীব্রতা আর ভ্যাপসা গরম অন্যদিকে লোডশেডিংয়ে জীবন বিপর্যয় হয়ে পড়েছিল। আজ একটু বৃষ্টিতে স্বস্তি ফিরে এলো।

কুড়িগ্রাম রাজারহাট উপজেলার আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র জাগো নিউজকে বলেন, শুক্রবার সকাল ৯টায় কুড়িগ্রাম-লালমনিরহাটের বিভিন্ন এলাকায় ৪৯ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড হয়েছে।

হাতীবান্ধা উপজেলার কৃষি উপ-সহকারী কর্মকর্তা লতিফুল বারী বলেন, এমন বৃষ্টিপাতে আমন ধান বীজতলা প্রাণ ফিরে পেলো। আশাকরি বীজতলার কোনো ক্ষতি হবে না।