বয়স পঞ্চাশ পেরোলেই দেখা দেয় নানান শারীরিক সমস্যা। কোমর থেকে পা-ঘাড় ও অন্যান্য জয়েন্টের ব্যথা কাবু করে ফেলে সহজেই। অনেকেই আবার ভোগেন অস্টিয়োআর্থ্রাইটিস, উচ্চরক্তচাপ-সহ নানাবিধ অসুখে। এই সব রোগের নিরাময়ে শারীরচর্চা উপকারী হলেও অনেকেরই ক্ষমতা থাকে না তা প্র্যাকটিস করার।

ব্যায়াম করুন চেয়ারে বসে

যে বয়সের পরে দাঁড়িয়ে বা ছুটোছুটি করে শারীরচর্চা করার ক্ষমতা চলে যায়, সে সময়ে কিছু হালকা ব্যায়াম শুরু করুন চেয়ারে বসে। হাড়ের ক্ষয়, জয়েন্ট পেন-সহ আরও বিভিন্ন কারণেই অনেকে এই সময়ে শরণাপন্ন হয়ে থাকেন যোগাসনের। তাতে দীর্ঘমেয়াদি ফল পাওয়া সম্ভব। জেনে নিন বসে বসে কী কী ব্যায়াম করা সম্ভব-

ফুল বডি টোনিং অ্যান্ড টাইটনিং

চেয়ারে বসে হাত দুটো মাথার উপরে সোজা তুলে দিয়ে লক করে নিন এবং উল্টে দিন। এ বার চেয়ারে বসেই দু’পা ফাঁক করে চওড়া ভাবে দু’পাশে নিয়ে আসুন। হাত মাথার উপরে টানটান করে মাটিতে গোড়ালি রেখে ভর দিয়ে পা দু’টি ওঠান। থাই, ঘাড়, পিঠ ও হাতের সব পেশি টানটান হয়ে থাকবে। ১৬ কাউন্ট করে ১০-১৫ সেট করুন। এই এক্সারসাইজ় দিয়ে শারীরচর্চা শুরু করলে গোটা শরীরের জং ধরা ভাব কেটে যাবেগ

সিটেড জগিং

এটি এক ধরনের কার্ডিয়ো এক্সারসাইজ়। বয়স হয়ে গেলে জগিং বা স্পট জগিং করা সম্ভব হয় না অনেকের পক্ষেই। তাই চেয়ারে বসেই সিটেড জগিং করলে শরীরের উপরিভাগের ব্যায়াম হবে এতে। চেয়ারে সোজা হয়ে বসে পড়ুন। এ বার দু’হাত দু’পাশে দিয়ে দৌড়নোর মতো ভঙ্গি করুন। পা মাটিতে শক্ত করে রাখুন। এক-এক বারে ৫০ অবধি গুনে দৌড় শেষ করুন। এই ব্যায়াম করার সময়ে নাক দিয়ে শ্বাস টেনে মুখ দিয়ে ছাড়বেন। অভ্যেস হয়ে গেলে ৫০ থেকে বাড়িয়ে এক বারে ১০০ পর্যন্ত গোনার চেষ্টা করুন।

অ্যাব এক্সারসাইজ়

শরীরের পেশি টোন-আপ করার জন্য জরুরি এই ধরনের ব্যায়াম। লুজ় ফ্যাট ঝরে গিয়ে অ্যাবস টাইট হয় এতে। চেয়ারে বসে পেটের উপরে দু’হাত দিয়ে জোরে শ্বাস নিয়ে তা ধরে রাখুন। ১৬ গুনে ছেড়ে দিন। ১০-১২ সেট করতে হবে এই ব্যায়াম।

এ ছাড়া যোগাসনের অভ্যাস থাকলে ভুজঙ্গাসন করুন। কোমরের জোর বাড়াতে এর জুড়ি নেই। ১৬ কাউন্ট অবধি শরীর ধরে রেখে ছেড়ে দিন, ৬-৮ সেট করতে হবে। পার্কে হেঁটে আসুন, একটু স্ট্রেচিং হবে তাতে। যে ব্যায়ামই হোক, তা নিয়মিত করুন। তাতে হাড়ের বয়স বাড়লেও জোর কমবে না।