প্রতিপক্ষকে ফাঁসাতে নিজের মেয়েকে হত্যা করেছে বাবা। রাজশাহীর বাঘায় ২০০৪ সালে ঘটে যাওয়া এ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উন্মোচন করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

এই ঘটনায় ওই শিশুর মা ও সৎ মা আদালতে জবানবন্দি দিয়েছেন। রাজশাহী জেলা পিবিআই এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ মঙ্গলবার (১১ এপ্রিল) সকালে এ নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন।

এ সময় অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, রাজশাহী জেলার বাঘা থানার লক্ষীনগর গ্রামে ২০০৪ সালে একটি হত্যাকাণ্ড ঘটে। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আকসেদ আলী সিকদার একটি হত্যা মামলা করেন। মামলাটি তদন্ত করে রাজশাহী জেলা ও গোয়েন্দা পুলিশ এজাহারে বর্ণিত ২০ জন আসামির বিরুদ্ধে ২০০৪ সালের ৩০ নভেম্বর আদালতে চার্জশিট দাখিল করে।

১৮ বছর বিচারকাজ শেষে আদালতে প্রমাণ হয় যে, এই মামলার আসামিরা হত্যাকাণ্ডের সাথে জড়িত নয়। হত্যাকাণ্ডে জড়িত প্রকৃত আসামিদের খুঁজে বের করতে আরও তদন্ত করে পুলিশ রিপোর্ট দাখিল করার জন্য অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পিবিআই রাজশাহীকে নির্দেশ দেন।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আরও বলেন, এই মামলার তদন্ত করতে গিয়ে জানতে পারি মামলার বাদি গ্রামের প্রতিপক্ষ মোল্লা বংশকে ফাঁসানোর উদ্দেশে নিজেই তার মেয়ে রেবেকা খাতুন (১৩) কে হত্যা করেছে। বাদি নিজেই হত্যাকাণ্ডের জন্য দায়ী। তার দুই স্ত্রী ভায়েলা বেওয়া ও অফিয়া বেওয়া আদালতে গত ৯ এপ্রিল ১৬৪ ধারায় জবাবনন্দি দেন।

এ সময় তারা স্বীকার করেন, তাদের স্বামী হাসুয়ার কোপে তার মেয়েকে হত্যা করে। এই মামলায় বর্তমানে ২০ জন আসামি জামিনে আছে। তবে আমাদের প্রতিবেদনে মূল আসামি মামলার বাদি আকসেদ আলী ২০১৯ সালে মারা গেছেন।