হার্ট অ্যাটাক যে শুধু বয়স্কদেরই হতে পারে, তা কিন্তু নয়। কম বয়সীদের মধ্যেও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি বাড়তে পারে অনিয়মিত জীবনযাপনের কারণে।

হার্ট অ্যাটাকের আগে বেশ কয়েকটি লক্ষণ দেখা দিতে পারে। তবে বেশিরভাগ মানুষই হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণকে সাধারণ ভেবে ভুল করেন।

আরও পড়ুন: হাত-পা অবশ ও ফুলে যাওয়া গুরুতর কোনো রোগের লক্ষণ নয় তো?

হার্ট অ্যাটাক হলে হার্টের করোনারি আর্টারি ব্লক হয়ে যায়। ফলে রক্ত চলাচল ঠিকমতো হয় না। এ কারণে হৃৎপিণ্ডে সমস্যা তৈরি হয়। হার্ট পাম্প করার শক্তি হারায়। হার্ট অ্যাটাকের আগে মিনি হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণও দেখা দিতে পারে।

মিনি হার্ট অ্যাটাককে নন এসটি এলিভেশন মায়োকার্ডিয়াল ইনফ্রাকশন বলা হয়। এই সমস্যা তখন তৈরি হয় যখন হৃৎপিণ্ডের রক্তনালি কিছুটা ব্লক হয়ে যায়। মিনি হার্ট অ্যাটাকের লক্ষণ উপেক্ষা করলে মেজর হার্ট অ্যাটাকও হতে পারে।

আরও পড়ুন: পায়ে ব্যথা ও চুলকানি হতে পারে কঠিন যে রোগের লক্ষণ

এনসিবিআই’তে প্রকাশিত একটি গবেষণায় বলা হয়েছে, মিনি হার্ট অ্যাটাক মোটামুটি ১০ মিনিটের জন্য স্থায়ী হয়। এক্ষেত্রে বুকে, হাতে, ঘাড়ে ও থুতনিতেও ব্যথা হতে পারে। এর সঙ্গে থাকে ক্লান্তি, বমি বমি ভাব, বমিসহ প্রচণ্ড ঘাম ইত্যাদি উপসর্গ দেখা দিতে পারে।

মিনি হার্ট অ্যাটাকের কোনো লক্ষণ দেখা দিলেই দ্রুত হাসপাতালে যেতে হবে। সেখানে ইসিজি করাতে পারেন। এই টেস্টেই ধরা পড়বে আপনার মিনি হার্ট অ্যাটাক হয়েছে কি না। এছাড়া অন্য পরীক্ষা করতে হতে পারে যেমন- সিটি স্ক্যান ও অ্যানজিওগ্রাফি।

আরও পড়ুন: ত্বক-নখ ও চোখে কোলেস্টেরলের গুরুতর যে লক্ষণ ফুটে ওঠে

কাদের ঝুঁকি বেশি?

১. ধূমপায়ী
২. শারীরিক পরিশ্রম নেই যাদের
৩. উচ্চ রক্তচাপ
৪. ডায়াবেটিস ও
৫. স্থূলকা
৬. পরিবারে কারও থাকলে ইত্যাদি।