অমর একুশে বইমেলায় আদর্শ প্রকাশনীকে স্টল বরাদ্দ দিতে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। ফলে এবারের বইমেলায় স্টল পাচ্ছে না আদর্শ প্রকাশনী।

হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে বাংলা একাডেমির করা আবেদন নিষ্পত্তি করে বুধবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নেতৃত্বাধীন তিন বিচারপতির আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন।

এদিন আদালতে আদর্শ প্রকাশনীর পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার অনিক আর হক। বাংলা একাডেমির পক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন।

আরও পড়ুন: বইমেলায় আদর্শ প্রকাশনীকে স্টল বরাদ্দ দিতে সমস্যা কোথায়

আদর্শ প্রকাশনীর পক্ষে রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার অনিক আর হক  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বাংলা একাডেমির করা এ সংক্রান্ত আপিল আবেদনের সংক্ষিপ্ত শুনানি নিয়ে গত ১৩ ফেব্রুয়ারি বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিমের চেম্বার জজ আদালত আবেদনটি পূর্ণাঙ্গ বেঞ্চে শুনানির জন্য পাঠান এবং শুনানির জন্য ১৫ ফেব্রুয়ারি দিন ধার্য করেন। এরই ধারাবাহিকতায় আজ সেই আবেদনের ওপর শুনানি হয়।

বাংলা একাডেমির আপত্তি তোলা তিনটি বই স্টলে না রাখার (প্রদর্শন ও বিক্রি) শর্তে বইমেলায় আদর্শ প্রকাশনীকে স্টল বরাদ্দ দিতে গত ৮ ফেব্রুয়ারি নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। ওই তিনটি বই হচ্ছে, ফাহাম আব্দুস সালামের লেখা ‘মিডিয়োক্রিটির সন্ধানে’, জিয়া হাসানের ‘উন্নয়ন বিভ্রম’ এবং ফয়েজ আহমদ তৈয়্যবের ‘অপ্রতিরোধ্য উন্নয়নের অভাবনীয় কথামালা’।

আদর্শ প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী মো. মাহাবুবুর রহমানের করা রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে বিচারপতি মো. খসরুজ্জামান ও বিচারপতি মো. ইকবাল কবিরের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন। পরে হাইকোর্টের এ আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল আবেদন করে বাংলা একাডেমি।

আরও পড়ুন: বইমেলায় স্টল পেতে আদর্শ প্রকাশনীর রিট

অমর একুশে বইমেলা ঘিরে বাংলা একাডেমি গত ১২ জানুয়ারি স্টল বরাদ্দের তালিকা প্রকাশ করে। সেখানে আদর্শ প্রকাশনীর নাম না থাকায় গত ২ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিট করেন প্রকাশনীর স্বত্বাধিকারী মো. মাহাবুবুর রহমান। রিটে বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক ও সভাপতিসহ চারজনকে বিবাদী করা হয়।

এছাড়াও রিটে আদর্শ প্রকাশনীকে স্টল বরাদ্দ না দেওয়া কেন অবৈধ ঘোষণা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারির আর্জি জানানো হয়। পাশাপাশি দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রকাশনীটিকে স্টল বরাদ্দ দিতে নির্দেশনা চাওয়া হয়।

রিট আবেদনে বলা হয়েছে, শুধুমাত্র একটি বইয়ের জন্য কাগজে-কলমে মেলায় পুরো প্রকাশনীর অংশগ্রহণ বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে, অথচ সে বইটি ব্যান্ড বা ব্ল্যাকলিস্টেড নয়। তাদের এমন সিদ্ধান্ত ‘বাংলা একাডেমি আইন ২০১৩’ অনুযায়ী কোনো বৈধতা নেই। একই সঙ্গে প্রতি বছর একাডেমি থেকে যে নীতিমালা করা হয়, তারও ব্যত্যয় ঘটিয়ে সিদ্ধান্ত দিয়েছে বাংলা একাডেমি। তাদের এমন সিদ্ধান্ত সংবিধানে প্রদত্ত বাকস্বাধীনতা পরিপন্থি।

আরও পড়ুন: কারও বিরুদ্ধে কুৎসা রটানো মুক্তচিন্তার বহিঃপ্রকাশ হতে পারে না

রিটকারীরা জানান, অদ্ভুত ব্যাপার হলো এবার আদর্শ প্রকাশনীকে পাঠানো চিঠিতে স্টল বরাদ্দ না দেওয়ার কোনো কারণ দর্শানোরও প্রয়োজন মনে করেনি বাংলা একাডেমি, স্রেফ জানিয়ে দিয়েছে, ‘সবদিক বিবেচনা করে অমর একুশে বইমেলা-২০২৩ পরিচালনা কমিটি সর্বসম্মতিক্রমে আপনাদের প্রকাশনা সংস্থা আদর্শ’র অনুকূলে স্টল বরাদ্দ প্রদান না করার পূর্বের সিদ্ধান্ত বহাল রেখেছে।’

শুধু তাই নয়, বইটি বাংলাদেশের অনলাইনে বই বিক্রির বৃহত্তম প্ল্যাটফর্ম রকমারি ডটকম থেকেও কোনো ধরনের ঘোষণা ছাড়াই সরিয়ে ফেলা হয়েছে। এদিকে বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক ও বিক্রেতা সমিতির মাধ্যমে বইটিকে ৪৬তম কলকাতা আন্তর্জাতিক পুস্তকমেলারও বাইরে রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

গত ৩০ জানুয়ারি সমিতির পক্ষ থেকে আদর্শ প্রকাশনীর প্রধান নির্বাহী মাহবুবুর রহমানের কাছে পাঠানো চিঠিতে বলা হয়, আদিষ্ট হয়ে আপনার সদয় অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জানানো যাচ্ছে যে আপনার প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান ‘আদর্শ’ থেকে প্রকাশিত ‘বাঙালির মিডিয়োক্রিটির সন্ধানে’র লেখক ফাহাম আব্দুস সালামের বইটি ৪৬তম কলকাতা আন্তর্জাতিক পুস্তকমেলা-২০২৩ এ প্রদর্শন ও বিক্রয় করা থেকে বিরত থাকার জন্য বলা হলো।

প্রশ্ন হলো, বইমেলা সংক্রান্ত নীতিমালা ভঙ্গের অভিযোগে বাংলা একাডেমি বইটিকে একুশে বইমেলা থেকে দূরে রেখেছে, কিন্তু পুস্তক প্রকাশক সমিতি কোন নীতিমালা বা এখতিয়ারবলে কলকাতা বইমেলায় বইটি বিক্রি ও প্রদর্শনী না করার নির্দেশনা দিল! পুস্তক প্রকাশক সমিতি অবশ্য লিখেছে, তারা ‘আদিষ্ট’ হয়ে এই নির্দেশনা দিয়েছে।