নোয়াখালীর বসুরহাট পৌর মেয়র আবদুল কাদের মির্জার ৬ অনুসারীর বিরুদ্ধে থানায় জিডি করেছেন নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মিজানুর রহমান বাদল।

ফেসবুকে অপপ্রচার চালানোর অভিযোগ এনে বৃহস্পতিবার বিকালে তিনি কোম্পানীগঞ্জ থানায় এ জিডি করেন।

জিডিতে নাম উল্লেখকৃতরা হলেন- কাদের মির্জার অনুসারী ৮নং চরএলাহী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের আব্দুল খালেকের ছেলে কামাল হোসেন, পৌরসভার ৩নং ওয়ার্ডের মনোরঞ্জন দাসের ছেলে দীলিপ দাস, চরহাজারী ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের আবু নাছেরের ছেলে রুমন চৌধুরী, চরকাঁকড়া ৬নং ওয়ার্ডের আনিছল হকের ছেলে শাহাদাত হোসেন পিংকু, পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ডের মো. দুলাল মিয়ার ছেলে মো. হামিদ উল্যাহ ও পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের মোশারফ হোসেনের ছেলে শাহাদাত হোসেন সজল।

মিজানুর রহমান বাদল তার জিডিতে উল্লেখ করেন, ৮নং চরএলাহী ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের আব্দুল খালেকের ছেলে কামাল হোসেন আমার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে একটি পোস্ট স্ক্রিনশটের মাধ্যমে নিয়ে আমার আইডির নাম রেখে বাকি সব কেটে এডিট করে তার ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্ট করে। পরবর্তীতে উল্লেখিত অন্য ৫ যুবকও এ ছবিটি তাদের ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে পোস্ট করে।

মিজানুর রহমান বাদল বলেন, উক্ত ৬ যুবক আমার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার ধ্বংস করার জন্য উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এবং আমাকে হেয়প্রতিপন্ন করার জন্য এহেন কার্যকলাপ করেছে। এ ধরনের কোনো পোস্ট আমি করিনি। যে কারণে ওই ৬ যুবকের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য আবেদন করাসহ ভবিষ্যতের জন্য সাধারণ ডায়েরি করেছি।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ওসি মীর জাহেদুল হক রনি জিডির বিষয়ে বলেন, এমন একটি জিডি হয়েছে। তদন্তসাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।