জাতীয় ভোটার দিবসে দেশের সকল নাগরিকদের তাত্ক্ষণিক ভোটার হওয়ার সুযোগ করে দিতে যাচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ঐ দিন নির্বাচন কমিশনের উপজেলা অফিসগুলোতে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সাথে করে নিয়ে গেলে স্পটেই সরাসরি ভোটার হওয়া যাবে। আগামী ২ মার্চ দিবসটি পালিত হবে।

এ বিষয়ে ইসির সচিব হুমায়ুন কবির খোন্দকার জানান, ভোটার হওয়া চলমান প্রক্রিয়া। ১৮ বছরের বেশি যে কোনো নাগরিক প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে ভোটার হতে পারেন। আইনানুযায়ী ভোটার দিবসে সারা দেশের চূড়ান্ত ভোটার তালিকা প্রকাশ করা হবে।

ইসির সংশ্লিষ্টদের থেকে জানা যায়, গতবারের মতো ঝাঁকজমকভাবে পালিত না হলেও চলমান করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে দিবসটি পালিত হবে স্বল্প পরিসরে। তবে গতবারের মতো এবারও অনস্পটে ভোটার করবে উপজেলা নির্বাচন অফিসগুলো। বিশেষ করে ভোটার হওয়া একটি চলমান প্রক্রিয়া। তবে ভোটার দিবসে কেউ ইসির অফিসে গিয়ে তখনই ভোটার হতে পারবেন। নতুন ভোটারদের নাম, ঠিকানা ও সংশ্লিষ্ট তথ্য সংগ্রহ করে যাচাই করা হবে। এরপরই তাদের ভোটার করা হবে।

দিবসটিতে ইসির কর্মকর্তাদের নিয়েই বিকাল ৩টায় ভিডিও কলিং অ্যাপ জুমে এক আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। বাংলাদেশ সরকার ২০১৮ এপ্রিল মাসে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘গণতন্ত্র, নির্বাচন ও ভোটাধিকার বিষয়ে সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে’ প্রতি বছরের ১ মার্চকে জাতীয় ভোটার দিবস হিসেবে উদ্যাপন করার সিদ্ধান্ত নেয়। এক বছর ভোটার দিবস পালনের পরে এই তারিখ পরিবর্তন করে ২ মার্চ করা হয়।