মিয়ানমারের বড় এবং প্রধান শহর ইয়াঙ্গুনে সেনা অভ্যুত্থানের পর রাস্তায় নেমে আসতে শুরু করেছে শত শত মানুষ।

বিবিসির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, বিক্ষোভকারীরা গণতন্ত্রের জয় জয়, সেনা স্বৈরশাসক, ব্যর্থ ব্যর্থ ইত্যাদি বলে স্লোগান দিতে থাকে। মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানে সু চি ও তার দলের প্রধান নেতাদের আটকের পর সকল মানুষ আস্তে আস্তে রাস্তায় নামতে শুরু করে। এখন পর্যন সকল বিক্ষোভ থেকে এটিই একমাত্র সবচেয়ে বড় বিক্ষোভ।

বিক্ষোভকারীদের দাবি একটাই, যেন সু চি-সহ বাকি সকল নেতাদের মুক্তি দেয়া হয়। তারা সু চি-কে মুক্তির জন্য আহ্ববান জানিয়েছেন। এছাড়াও বিক্ষোভে অংশ নেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী থেকে শুরু করে শিক্ষক পর্যন্ত।

বার্তা সংস্থা এএফপি-কে মিন সিথু নামের এক শিক্ষার্থী জানান, আমরা আমাদের প্রজন্মকে এই ধরণের সেনাবাহিনীর একনায়কতন্ত্রের কারণে ভোগান্তির শিকার হতে দিতে পারি না। তাই আমরা অবস্থান নিয়েছি।

এদিকে শুক্রবার সন্ধ্যা নাগাদ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের পর টুইটার এবং ইনস্টাগ্রামকে ব্লক করার নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ। দেশটির প্রধান ইন্টারনেট সেবাদাতাদের একটি, টেলিনর নিশ্চিত করছে, তাদেরকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত গ্রাহকদেরকে ওই দুটি সাইটে প্রবেশ থেকে বিরত রাখতে বলা হয়েছে। এবং ইনস্টাগ্রামও বন্ধ করে রাখা হয়েছে।

বার্তাবাজার/ভি.এস