মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন দল ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নেত্রী অং সান সু চি এবং রাষ্ট্রপ্রতি উইন মিতনসহ দলটির শীর্ষ নেতাকর্মীদের আটকের পর আগামী এক বছরের জন্য জরুরি অবস্থা জারি করেছে। পাশাপাশি আগামী এক বছরের জন্য দেশটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে সেনাবাহিনী। অন্যদিকে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের ভিত্তিতে জানা যাচ্ছে যে, নাইপিডোতে টেলফোন, ইন্টারনেট এবং টেলিভিশন সম্প্রচার বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

দলের এক মুখপাত্রের সূত্রে জানা যায়, সোমবার ভোরে দেশটির সেনাবাহিনী অভিযান চালায়। এ অভিযানে সু চি, মিনতসহ শীর্ষ সকল নেতাকর্মীকে আটক করা হয়। তিনি দেশটির সম্ভাব্য সামরিক অভ্যুত্থানের আশঙ্কাও প্রকাশ করেন।

প্রধানত দেশটির সামরিক বাহিনী গত বছরের নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে ব্যাপক ভোট জালিয়াতি হয় এমন অভিযোগ এনে তারা এই অভিযান পরিচালনা করেন। সেনাবাহিনীর দাবি সেই নির্বাচনে ৮.৬ মিলিয়ন ভোট জালিয়াতির ঘটনা ঘটে। তাই তারা সেই অভিযোগের ভিত্তিতে এই অভিযান পরিচালনা করেন।