রাজধানীতে করোনাভাইরাস ব্যাপক আকার ধারণ করলেও এখানের রিকশাচালকদের মাঝে করোনা সংক্রমণের পরিমাণ প্রায় নেই বললেই চলে।

০.১ শতাংশ রিকশাচালকের মাঝে এই ভাইরাসে আক্রান্তের হার আছে বলে এক গবেষণায় জানিয়েছে পাওয়ার অ্যান্ড পার্টিসিপেশন রিসার্চ সেন্টার (পিপিআরসি)। এই অভাবনীয় কারণ সম্পর্কে সংস্থাটি জানায়, তাদেরসহ নিম্ন আয়ের মানুষ, বস্তিবাসীর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশি।

অনলাইন প্লাটফর্মে এই গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেন সংস্থার চেয়ারম্যান ড. হোসেন জিল্লুর রহমান।

তিনি জানান, করোনা মহামারীকালে সাধারণ ছুটিকালীন সময়েও এদের মধ্যে করোনায় সংক্রমিত হওয়ার তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে তাদের মধ্যে সাধারণ ফ্লু, সর্দি, কাশি, পেটে ব্যথা, শরীরের বিভিন্ন জয়েন্টে ব্যথা ইত্যাদি পাওয়া গেছে। এগুলো মূলত তাদের খাদ্যাভ্যাস এবং পেশাগত কাজের ঝুঁকির কারণেই হয়ে থাকে বলে গবেষণায় বেরিয়ে এসেছে। ঢাকার দুই সিটির ১২০০ জন রিকশাচালকদের মাঝে এ জরিপ চালানো হয়।

রিকশাচালকদের খাদ্যাভ্যাসের বিষয়ে বলা হয়, এদের শতকরা প্রায় ৭৩ জনই ধূমপায়ী। শতকরা প্রায় ৬২ জনই রাস্তা বা ফুটপাথ থেকে খাবার খেয়ে থাকেন। এদের ৬২ জন খাবারের আগে হাত ধৌত করেন। বাকিরা হাত না ধোয়ার কারণে নানা রোগ ব্যাধিতে আক্রান্ত হন। এমনকি টয়লেট করার পরও প্রায় ১৭ রিকশাচালক সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার করেন না। এর কারণ হিসেবে সচেতনতার অভাব, উপযুক্ত পরিবেশের অভাব এবং আর্থিক অক্ষমতার কথা বলা হয়েছে।