ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

অনলাইন ডেস্ক

‘বিশ্বে ধূমপায়ীর সংখ্যা শতকোটি’

যদিও বিশ্বের অনেক অঞ্চলে ধূমপানের প্রবণতা কমে এসেছে তারপরও বিশ্বে মোট ধূমপায়ীর সংখ্যা বেড়েই চলেছে।

বিশ্ব পরিসংখ্যানে এ তথ্য প্রকাশ পেয়েছে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

২০১২ সালের পরিসংখ্যান অনুযায়ী বিশ্বে প্রতিদিন ৯৬ কোটি ৭০ লাখ মানুষ ধূমপান করে। যেখানে ১৯৮০ সালে এই সংখ্যা ছিলো মাত্র ৭২ কোটি ১০ লাখ।

পরিসংখ্যানের গবেষকরা ১৮৭টি দেশ থেকে তথ্য নিয়ে এই প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছেন।

গবেষকরা জানান, যদিও ধূমপায়ীর সংখ্যা বেড়ে যাওয়া পৃথিবীর মোট জনসংখ্যা

কিস্তিতে পণ্য


ওয়ালটন ব্র্যান্ডের পণ্য এখন সর্বোচ্চ ২৫ মাসের কিস্তিতে কেনা যাবে। ১১ ফ্রেব্রুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য দিয়েছে আরবি গ্রুপের প্রতিষ্ঠান ওয়ালটন।

এর আগে সর্বোচ্চ ১৮ কিস্তিতে ওয়ালটন পণ্য কেনার সুবিধা ছিল।

বাসা-বাড়িতে ব্যবহার যোগ্য ছোট ইলেকট্রনিক্স পণ্যসামগ্রী কেনার ক্ষেত্রে ওয়ালটনেই

ওজন নিয়ন্ত্রণ


বিয়ের পর হালকা-পাতলা গড়ন যেন কোথায় হারিয়ে যায়। শাড়ির ব্লাউজে হাঁসফাঁস, কামিজগুলো যেন অন্য কারও, আর টি-শার্ট, জিনস-ট্রাউজারস? সেসবের কথা না হয় বাদই গেল। কেনো ঘটে এই অকস্মাৎ ওজন বৃদ্ধি? কেনো শরীর থেকে হারিয়ে যায় সুন্দর সুষম আকার? আর এর থেকে বাঁচার উপায়ই বা কী? বিস্তারিত জানাচ্ছেন পুষ্টিবিদ আসফিয়া আজিম।

ঝুঁকিপূর্ণ খাবার


বন্ধুদের সঙ্গে কাটানো চমৎকার একটি সন্ধ্যার কথা মনে করুন তো। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস বা অফিস শেষে সবাই মিলে কোনো এক ফাস্টফুডের দোকানে ঢুকে একগাদা খাবার অর্ডার দেওয়া, তারপর হুল্লোড় করে খেয়ে-দেয়ে জম্পেশ আড্ডার পর ঘরে ফেরা। আর এভাবেই রাতটা পার করা। এভাবে সন্ধ্যা কাটিয়ে মনের ক্লান্তি তাড়ান যতটাই জুতসই, ঠিক ততটাই কিন্তু ক্ষতিকর আপনার স্বাস্থ্য ও নিরবিচ্ছিন্ন ঘুমের জন্য।

তাহলে উপায় কী? বন্ধুদের আড্ডা থেকে নিজেকে সরিয়ে নেওয়া? নাকি আড্ডায় গিয়ে ‘কিছু খাব না’ বলে ক্ষুধা পেটে মুখ গোমরা করে বসে থাকা?

এসবের কোনো কিছুরই আসলে প্রয়োজন নেই। আড্ডায় যাবেন। খাবারও খাবেন, বন্ধুদের সঙ্গও দেবেন। শুধু কয়েকটি খাবার এড়িয়ে চলুন। আর খেতেই যদি হয় তবে একবাটি সালাদ খেয়ে এরপর খান বন্ধুদের অর্ডার দেওয়া খাবারের সামান্য অংশ।


পাস্তা: এক প্লেট পাস্তায়, এক প্লেট ভাতের থেকেও বেশি ক্যালরি থাকে। পাস্তা আসলে কার্বোহাইড্রেট-জাতীয় খাবার। এই খাবারের সঙ্গে যখন চিজ বা অলিভওয়েল মেশানো হয় তখন এর ক্যালরিগুণ বেড়ে যায় দ্বিগুণ। তাই সন্ধের পর পাস্তা যদি খেতেই হয় তবে সালাদ বা সুপ খেয়ে এরপর ছয়জন মিলে খান এক বাটি পাস্তা।

এক প্লেট পাস্তায়, এক প্লেট ভাতের থেকেও বেশি ক্যালরি থাকে।

এক প্লেট পাস্তায়, এক প্লেট ভাতের থেকেও বেশি ক্যালরি থাকে।
এক টুকরা পিৎজা শরীরকে খুব তাড়াতাড়ি নির্জীব করে দেয়। ছবি: হাসান বিপুল/বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

এক টুকরা পিৎজা শরীরকে খুব তাড়াতাড়ি নির্জীব করে দেয়। ছবি: হাসান বিপুল/বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

পিৎজা: এই সময়ের অন্যতম জনপ্রিয় খাবার। চিইজি জুসি, পিৎজার একটি কামড় ‘মন’কে ঝটপট চাঙা করে দেয়। আবার এই এক টুকরা চিইজি পিৎজাই পারে শরীরকে খুব তাড়াতাড়ি নির্জীব করে দিতে। পিৎজার ‘গ্লাইসেমিক ইনডেক্স’ খুব বেশি অর্থাৎ সামান্য পিৎজাও আমাদের শরীরে খুব তাড়াতাড়ি শোষিত হয়ে রক্তে চিনি’র পরিমাণ অনেকটা বাড়িয়ে দেয়। যা শরীরে চর্বিতে রূপান্তরিত হয়ে অল্প সময়ে ওজন বাড়ায়।

মিষ্টি: ক্যান্ডি বা মিষ্টিজাতীয় খাবার বেশি খেলে আপনি দুঃস্বপ্ন দেখবেন। হাসছেন? বিষয়টা কিন্তু সত্যি। যেকোনো সুগারি খাবার ব্রেনকে অতিরিক্ত সচল করে তোলে। আমাদের শরীর যেকোনো খাবার থেকেই তার প্রয়োজনীয় জ্বালানিটুকু সংগ্রহ করে    নেয়। আলাদা করে চিনি বা সুগারি কিছু খাওয়ার কোনো প্রয়োজন নেই। তাই রাতে প্রশান্ত, সুন্দর, বিরতিহীন ঘুম চাইলে বিকেলের পর ক্যান্ডি, মিষ্টি খাওয়া কমিয়ে দিন।

মিষ্টিজাতীয় খাবার বেশি খেলে আপনি দুঃস্বপ্ন দেখবেন। ছবি: হাসান বিপুল/বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

মিষ্টিজাতীয় খাবার বেশি খেলে আপনি দুঃস্বপ্ন দেখবেন। ছবি: হাসান বিপুল/বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।
রেড মিট হজম হতে সময় নেয় বেশি।

রেড মিট হজম হতে সময় নেয় বেশি।

 

 

রেড মিট: যদিও প্রোটিন আর আয়রনের খুব ভালো উৎস, তবে ২৫ বছর বয়সের পর এই খাবার খাওয়ার পরিমাণ কমাতে থাকুন। রেড মিট হজম হতে সময় নেয় বেশি। আর আমাদের শরীরের মেটাবলিক-প্রক্রিয়া বিকেলের পর থেকেই ধীর হতে শুরু করে। ফলে সন্ধ্যার পর রেড মিট খেলে তা ভালোভাবে হজম হয় না, যা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।

চকলেট: ডার্ক চকলেট হার্টের জন্য উপকারী। এক টুকরা ডার্ক চকলেট দিনের যেকোনো সময়ে আপনি খেতেই পারেন। সন্ধের পর এই চকলেট বা এই চকলেট দিয়ে বানানো কোনো খাবার দিকে হাত না বাড়ানোই ভালো। ডার্ক চকলেটে ক্যাফেইন বেশি থাকায় এটি ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়।

ডার্ক চকলেটে ক্যাফেইন বেশি থাকায় এটি ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়।

ডার্ক চকলেটে ক্যাফেইন বেশি থাকায় এটি ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়।
বাঁধাকপি ও ব্রোকলিতে আঁশের পরিমাণ বেশি, ফলে অনেক রাতে খেলে হজমে অসুবিধা হয়।

বাঁধাকপি ও ব্রোকলিতে আঁশের পরিমাণ বেশি, ফলে অনেক রাতে খেলে হজমে অসুবিধা হয়।

বাঁধাকপি, ব্রোকলি: রাতের খাবারে ব্রোকলি বা বাঁধাকপির সুপ বা দেশি মসলায় রান্না পাতলা ঝোলের তরকারি হিসেবে খেতে পারেন বাঁধাকপি। তবে এই সবজিগুলো সালাদ হিসেবে বা প্রচুর পরিমাণে বেশি রাতে না খাওয়াই ভালো। বাঁধাকপি ও ব্রোকলিতে আঁশের পরিমাণ বেশি, ফলে অনেক রাতে খেলে হজমে অসুবিধার সৃষ্টি করবে, ঘুমে ব্যাঘাত ঘটাবে।

পানীয়: কোক, কফি, চা-এসবে ট্যানিন এবং ক্যাফিন দুটোই উপস্থিত। যা মস্তিষ্ককে অতিরিক্ত সচল আর উদ্দীপিত করে তোলে। সন্ধ্যার পর তাই চা, কফি, কোক না খাওয়াই ভালো।

চিপস: কুড়মুড়ে চিপস খেতে কিন্তু দুর্দান্ত। তবে চিপসে প্রচুর পরিমাণে তেল থাকে, ফলে এতে ক্যালরির পরিমাণও অনেক বেশি। ১০০ গ্রামের এক প্যাকেট চিপস থেকে প্রায় ৫২৫ কিলো-ক্যালরি পাওয়া যায়। যেখানে সারা দিনে একজন মানুষের প্রয়োজন ১৮শ’ থেকে ২ হাজার কিলো-ক্যালরি। ভেবে দেখুন, সামান্য এক প্যাকেট চিপস সারাদিনের ক্যালরি চাহিদার ৪ ভাগের ১ ভাগ পূরণ করে দিতে যথেষ্ট। পাশাপাশি চিপসে লবণ বেশি থাকে, তাই এই খাবার ব্লাডপ্রেসার বৃদ্ধি করার ক্ষেত্রেও একটি বড় ভূমিকা রাখে।

তাই মুভি দেখার সময় কিংবা বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডায় চিপসের প্যাকেটের বদলে বাদাম খান বা  ছোলা-মুড়ি। খাবার দুটি দেখতে অতটা স্মার্ট না হলে কী হবে, আপনাকে স্মার্ট আর ছিপছিপে রাখতে এদের জুড়ি মেলা ভার।

পাঁচমিশালি রান্না


মাখন-ডাল

উপকরণ : ছোলার ডাল, মুগ ডাল, খেসারির ডাল, মাষকলাইয়ের ডাল এবং মটর ডাল— সবগুলো মিলিয়ে দেড় কাপ ডাল। মাখন ১০০ গ্রাম। টক দই ৩ টেবিল-চামচ। মরিচ ৪টি। গরম-মসলা ১ চা-চামচ। রসুনকুচি ১টি। পেঁয়াজকুচি ১টি। হলুদগুঁড়া আধা চা-চামচ। জিরাগুঁড়া ১ চা-চামচ, পাঁচফোড়ন ১ চা-চামচ। চিনি ১ চা-চামচ। তেল ও লবণ পরিমাণমতো।

পদ্ধতি : সব ডাল ধুয়ে পরিমাণ মতো পানি দিয়ে পেঁয়াজ রসুনকুচি মরিচসহ চুলায় বসিয়ে দিন। ডাল সিদ্ধ হলে হলুদ ও লবণ দিন। ২-৩ মিনিট ফুটান। এবার অর্ধেক মাখন দিয়ে দিন। অন্য একটি পাত্রে তেল গরম করে পেঁয়াজ ও রসুনকুচির সঙ্গে পাঁচফোড়ন আর গরম-মসলা দিয়ে ভাজুন। এই ভাজার মধ্যে ডাল-সেদ্ধ ঢেলে দিন। ২-৩ মিনিট নাড়ুন। চুলা থেকে নামানোর আগে বাকি মাখনটুকু দিয়ে নামিয়ে ফেলুন। উপর দিয়ে টক দই ছড়িয়ে দিন। চাইলে ধনেপাতা আর ২টি শুকনামরিচ দিতে পারেন।

 

অন্যরকম সবজি

উপকরণ : আলু মাঝারি আকারের ২টি। ব্রকলি ১টি। মটরশুঁটি ১ কাপ। গাজর ৩টি। সিম ৬-৭টি। পেঁয়াজপাতা ৮-১০টি। গোলমরিচ ১ চা-চামচ। মরিচ ৪-৫টি। তেল বা মাখন বা ঘি পরিমাণমতো। লবণ স্বাদমতো।

পদ্ধতি : সবগুলো সবজি লম্বা করে একরকম ভাবে কাটুন। লবণ দিয়ে সিদ্ধ করতে দিন। কড়াইতে তেল কিংবা ঘি কিংবা মাখন গরম করুন। সিদ্ধ সবজিগুলো ঢেলে দিন। মরিচ দিয়ে জ্বাল বাড়িয়ে ঢেকে দিন। ৪-৫ মিনিট রাখুন। এর মাঝে হালকা নাড়া দিবেন কাঠের চামচ দিয়ে। খেয়াল রাখবেন সবজি যেন আসল রং না হারায়। নামানোর আগে লবণ হয়েছে কিনা দেখে গোলমরিচগুঁড়া দিয়ে নামিয়ে ফেলুন। পোলাও, রুটি, পরোটা কিংবা নানরুটির সঙ্গে পরিবেশন করতে পারেন।

 

সবজি খিচুড়ি

উপকরণ : চাল ২ কাপ। সবজি সব মিলিয়ে দেড় কাপ। মসুর বা মুগের ডাল ১ কাপ। আদাবাটা ১ চা-চামচ। রসুনবাটা ১ চা-চামচ। পেঁয়াজকুচি আধা কাপ। হলুদ আধা চা-চামচ। এলাচি ২টি। দারুচিনি ২টি। তেজপাতা ২টি। মরিচ ৩-৪টি। তেল পরিমাণমতো। লবণ স্বাদমতো।

পদ্ধতি : রান্নার ২ ঘণ্টা আগে ডাল ভিজিয়ে রাখুন। যে পাত্রে রান্না করবেন তাতে তেল গরম করে পেঁয়াজ, আদা ও রসুন দিয়ে নাড়ুন। এলাচি, দারুচিনি ও তেজপাতা দিয়ে আবার নাড়া দিয়ে হলুদ দিন। চাল ও ডাল মিশিয়ে এর মধ্যে দিয়ে নাড়তে থাকুন। ভাজা ভাজা হলে পানি দিয়ে সঙ্গে লবণও দিন। পানি ফুটে উঠলে সবজি দিয়ে প্রায় ১০ মিনিট ঢেকে রাখুন। ঢাকনা খুলে কাঠের চামচ দিয়ে নেড়েচেড়ে উল্টিয়ে দিন। আরও ১০ মিনিট রেখে নামিয়ে নিন।

ভ্রমণে দরকারী জিনিসপত্র


নিয়ম মেনে বাড়ি বানালে ঘরে পর্যাপ্ত আলো-বাতাস চলাচলের সুযোগ পায়। প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। বাসায় থাকে স্বাস্থ্যসম্মত পরিবেশ।

বহুতল বসতবাড়ি বানাতে হলে বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড বা বিএনবিসি’র নিয়মকানুন মেনেই বাড়ির নকশা করতে হবে। অন্যথায় জীবন ও পরিবেশ দুটোই ঝুঁকির মধ্যে পড়ে।

বাড়ি বানানোর বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের লাইফস্টাইল বিভাগে  দেওয়া সাক্ষাৎকারে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য বিভাগের অধ্যাপক ড. জেবুন নাসরিন আহমদ বলেন, “বর্তমানে বাংলাদেশ ন্যাশনাল বিল্ডিং কোড অনুযায়ী বাড়ি বানানোর জন্য আগের চেয়ে বেশি সুযোগ সুবিধা দেওয়া হচ্ছে।”

নাসরিন আহমদ জানান, বিএনবিসি ২০০৮ এর ৫১ ধারায় বাড়ি বানানো সময় ‘ম্যাক্সিমাম গ্রাউন্ড কভারেজ’ বা এমজিসি’র একটি চার্ট অনুসরণ করতে হয়। এতে জমির আকার অনুযায়ী কী পরিমাণ জায়গা ছেড়ে কয়তলা ও কতবড় ভবন নির্মান করা যাবে, সেটা উল্লেখ করা আছে।

এক্ষেত্রে একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে— যদি জমির পরিমাণ দুই কাঠার মধ্যে হয় তবে জমির মালিক শতকরা ৬৭.৫ ভাগ ব্যবহারের সুযোগ পাবেন। তাকে প্রায় এক তৃতীয়াংশ জমি ছেড়ে বাড়ি বানাতে হবে।

ঘিঞ্জি ঢাকা শহর। ছবি : হাসান বিপুল- বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

ঘিঞ্জি ঢাকা শহর। ছবি : হাসান বিপুল- বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।
তবে, তিনি ‘ফ্লোর এরিয়া রেশিও’ বা ‘ফার’ পাবেন ৩.১৫। মানে, ২ কাঠা জমি x ৩.১৫ ফার = ৬.৩০ কাঠার জমির সমপরিমাণ জায়গা ভবনে ব্যবহারের সুযোগ পাবেন।

জমির আয়তন যত বেশি ‘ফার’ও তত বেশি হয়।

বাড়ি বানানোর সময় চারপাশে জমি ছাড়ার প্রসঙ্গে নাসরিন আহমদ বলেন, “এর সুবিধা বাড়ির মালিকই পাবেন। যেমন, বাড়ির চারপাশে কিছুটা জায়গা খালি থাকলে ঘরে সহজেই আলোবাতাস চলাচল করতে পারে। খোলা জায়গায় শিশুরা খেলাধুলা করতে পারে।”

তিনি আরও বলেন, “বিল্ডিং কোড নীতিমালার একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা। আমরা সবাই জানি, ঢাকা শহরের ভূগর্ভস্থ পানির স্তর দিন দিন নিচের দিকে নেমে যাচ্ছে। এতে প্রাকৃতিক পরিবেশ মারাত্মক হুমকির মুখে। এজন্য বাড়ি বানানোর সময় জমির চারপাশ থেকে কিছুটা অংশ বাদ দিয়ে বহুতল বাড়ি বানাতে হয়। ফলে বর্ষার সময় বৃষ্টির পানি ফাঁকা জায়গা দিয়ে নিচে পড়ে আর মাটি শুষে নিতে পারে।”

“সবাই যদি চারপাশে জায়গা খালি না রেখে বাড়ি বানায় তাহলে ভবিষ্যতে মাটির ভেতরকার পানির স্তর অনেক নিচে নেমে যাবে। বলা যেতে পারে একটা ফাঁপা জায়গার উপর ঢাকা শহর দাঁড়িয়ে থাকবে। এটা যে কত ঝুঁকিপূর্ণ বিষয় একটু ভাবলেই শরীর শিউরে উঠে। বর্তমানে ঢাকা বিশ্বের সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ শহরগুলোর তালিকায় রয়েছে।” কথার ফাঁকে যুক্ত করলেন নাসরিন।

একটু খেয়াল করলে দেখা যাবে, জমির আকার যত বড় হয় তত বেশি (ফার) পাওয়া যায়। ‘মেক্সিমাম গ্রাউন্ড কভারেজ’ও তখন কমতে শুরু করে।

এছাড়া জমির পাশে যদি ১৮ মিটার রাস্তা থাকে সেখানে যে কোনো আয়তনের জমিতে ৬ ফার পাওয়া যাবে। অর্থাৎ জমি যদি ৩ কাঠাও হয়, সেই জমিতে ১৮ কাঠা জমির সমপরিমাণ জায়গা ব্যবহারের সুযোগ পাওয়া যাবে।

২০০৮ সালে প্রকাশিত ন্যাশনাল বিল্ডিং কোডে একটি বিষয় সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে, বাড়ি বানানোর আগে সরকার অনুমোদিত স্থপতির মাধ্যমে তৈরি করা নকশার অনুমতি নিতে হবে।

নির্মাণ কাজ শেষে সেই স্থপতি এই মর্মে সম্মতি জ্ঞাপন করবেন যে, তার দিক-নির্দেশনামতো বাড়ি তৈরি করা হয়েছে। বিল্ডিং কোড অনুযায়ী কোনো বিষয়ে নিয়মকানুন অনুসরণ না করার জন্য কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে তিনি দায়ী থাকবেন।

২০০৮ সালে গ্যাজেট আকারে প্রকাশিত ন্যাশনাল বিল্ডিং কোডের পিডিএফ ভার্সন ডাউনলোড করা যাবে।

জম্মু ও কাশ্মিরে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে ৭ সন্ত্রাসী নিহত


ভারতের জম্মু ও কাশ্মিরে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে সাত সন্ত্রাসী নিহত হয়েছেন।

সোমবার কুপওয়ারা জেলায় এ ঘটনা ঘটেছে বলে এনডিটিভি জানিয়েছে।

জেলার দার্দপোরার কাছাকাছি গ্রামের একটি বনে সন্ত্রাসীদের উপস্থিতির খবর পেয়ে সেটি ঘিরে ফেলে নিরাপত্তা বাহিনী। এরপর বনের অভ্যন্তরে

মিশরে সরকারের পদত্যাগ


মিশরের সেনা-সমর্থিত অন্তর্বর্তী সরকার পদত্যাগ করেছে। প্রধানমন্ত্রী হাজেম আল বেবলাওয়ি হঠাৎ করেই রাষ্ট্রীয় টিভিতে এ ঘোষণা দিয়েছেন।

দেশ বর্তমানে যে পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছে তার আলোকেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

মিশরে সরকারি খাতের কর্মী অসন্তোষসহ একের পর এক ধর্মঘট এবং

যুক্তরাষ্ট্র-দক্ষিণ কোরিয়া সামরিক মহড়া শুরু


দক্ষিণ কোরিয়া-যুক্তরাষ্ট্র যৌথ সামরিক মহড়া শুরু করেছে। দুই কোরিয়ার মধ্যে যুদ্ধে বিচ্ছিন্ন পরিবারগুলোর পুনর্মিলনের বিরল কাযযক্রমের মধ্যেই এই মহড়া শুরু হলো।

আগামী ২৪ এপ্রিল পর্যন্ত এই মহড়া চলবে বলে বিবিসি জানিয়েছে।

আকাশ, ভূমি ও সমুদ্র তিন পর্যায়েই এই মহড়া চালাবে

লেবানন সীমান্তে ইসরায়েলের বিমান হামলা


সিরীয় সীমান্তবর্তী লেবাননের পূর্বাঞ্চলে ইসরায়েলের সমরবিমান হামলা চালিয়েছে।

সোমবার এই হামলা চালানো হয় বলে নিরাপত্তাসূত্রে জানা গেছে।

তবে ওই অঞ্চলের ঠিক কোন লক্ষ্যস্থলে এই হামলা চালানো হয়েছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

সিরীয় সীমান্তের কাছে লেবাননের ওই