ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Saturday, 08 March 2014 02:09

মসজিদে বিজ্ঞাপনের শুটিং করে বিতর্কিত সানিয়া মির্জা

Rate this item
(0 votes)

ভারতের বিখ্যাত টেনিস খেলোয়ার সানিয়া মির্জা হায়দ্রাবাদের মক্কা মসজিদে এক বিজ্ঞাপনের শুটিংয়ে অংশ নিয়ে বিতর্কে জড়িয়ে পরেছেন। রাজ্য পুলিশ টেনিস তারকার বিরুদ্ধে এ ব্যাপারে একটি মামলা দায়ের করেছে। খবর ভারতের আনন্দবাজার পত্রিকা ও অন্যান্য ওয়েবসাইটের।

ক্ষুদ্ধ মজলিস ই ইত্তেহাদুল মুসলিমিন (এমআইএম) নামে হায়দ্রাবাদের মুসলিম সংগঠন ও স্থানীয় বাসিন্দারা বলেছেন, "সানিয়ারা মসজিদের ভিতরে শুটিং করার ফলে মসজিদের পবিত্রতা নষ্ট হয়েছে, মুসলিমদের ধর্মবিশ্বাসে আঘাত লেগেছে।"

এমআইএম মুুসলিমপ্রধান হায়দ্রাবাদের শক্তিশালী

মুসলিম রাজনৈতিক দল।

১১ ডিসেম্বর শুটিং চলার সময় স্থানীয় বাসিন্দা ও এমআইএম কর্মীরা মসজিদের সামনে বিক্ষোভ দেখান। তাদের আপত্তির মূল কারণ, শুটিংয়ের লোকেশন করা হয়েছে মক্কা মসজিদকে, উপরন্ত সেই শুটিংয়ের মডেল সানিয়া, যিনি নিজেও একজন মুসলিম।

মসজিদের কয়েকজন কর্মীর বক্তব্য, জুতো পরে মসজিদে ঢোকা যায় না। অথচ শুটিং দলের লোকেরা বেমালুম জুতো পরে মসজিদ চত্ত্বরে ঘোরাঘুরি করছিলেন। নিরাপত্তারক্ষী তাদের আটকাতে গেলে তারা ধাক্কা দিয়ে সরিয়ে দেয়।

পরে ছবিতেও দেখা যায় সানিয়াও চটি পায়ে শুটিং করেছেন। মসজিদ কর্তৃপক্ষ অভিযোগ করেন যে শুটিং ইউনিটের কিছু সদস্যের আচরণ ছিল আপত্তিকর।

বিক্ষোভকারীদের হটাতে পুলিশ মৃদু লাঠিচার্জ করেছে।

এমআইএম এর এক মুখপাত্র বলেছেন, " সানিয়া যেখানে খুশি সেখানে বিজ্ঞাপনের শুটিং করতে পারেন। কিন্তু মসজিদটা এসবের উপযুক্ত জায়গা নয়।"

বিষয়টি সম্পর্কে অন্ধ্রের সংখ্যালঘু উন্নয়ন দফতরের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে এমআইএম।

সংখ্যালঘু উন্নয়ন দফতরও এই ঘটনায় অসন্তুষ্ট। তারাই মক্কা মসজিদের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে। অথচ দফতরের কর্তরা বলছেন, তাদের কাছে শুটিংয়ের কোন অনুমতিই নেননি বিজ্ঞাপননির্মাতরা। মসজিদ কর্তৃপক্ষের কাছে গোটা ঘটনার রিপোর্ট চেয়েছেন তারা।

সংখ্যালঘু উন্নয়ন বিভাগের কর্মকর্তা শেখ করিমউল্লাহ বলেন, "মসজিদে আসা লোকজনের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করেছেন সানিয়া।"

এ ব্যাপারে সানিয়ার কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, "আমি এক জন টেনিস খেলোয়াড়। টেনিসই আমার ধর্ম। খেলোয়াড় হিসেবে আমার হয়তো সমাজের কাছে কিছু আবেদন আছে। সে জন্যই বিজ্ঞাপন এনডোর্সমেন্টের প্রস্তাব পাই। শুটিংটা বিজ্ঞাপনদাতার ব্যাপার। তবে আমি কোনও ভাবেই কাউকে আঘাত করতে চাই না।"

বাজার ধরতে গিয়ে ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করার অভিযোগ এর আগেও উঠেছে বেশ কিছু তারকার বিরুদ্ধে। সুভাষ ঘাইয়ের 'পরদেশ' ছবির শুটিংয়ের সময় চটি পায়ে ফতেপুর সিক্রিতে ঢোকার অভিযোগ উঠেছিল খোদ শাহরুখ খানের বিরুদ্ধেও। ক্যাটরিনা কাইফ স্কার্ট পরে আজমীর শরিফে 'নমস্তে লন্ডন' ছবির শুটিং করতে গিয়ে তুলকালাম বাধিয়েছিলেন।