ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

ফুটবল একাডেমির দায়িত্ব নিচ্ছে ফিফা

Rate this item
(0 votes)

সিলেট বিকেএসপিতে হতে যাওয়া দেশের প্রথম ফুটবল অ্যাকাডেমি পরিচালনার দায়িত্ব নিতে যাচ্ছে আন্তর্জাতিক ফুটবল সংস্থা (ফিফা)। তিন বছর এই অ্যাকাডেমির সমস্ত ব্যয়ভার বহন করা ছাড়াও কারিগরী সহায়তা এবং জনবল দিয়ে সাহায্য করার প্রতিশ্র“তিও দিয়েছে তারা। মঙ্গলবার বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) ভবনে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দেন ফিফা সভাপতি সেপ ব্ল্যাটার।

মার্চের শেষ সপ্তাহে ফিফা এই কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক অনুমোদন দেবে। এজন্য ৭ লাখ মার্কিন ডলার দেয়ারও প্রতিশ্র“তি দিয়েছে বিশ্ব ফুটবলের নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি। ফুটবল অ্যাকাডেমির কার্যক্রম সন্তোষজনক হলে তিন বছর পর দায়িত্বের মেয়াদ বাড়ানো হতে পারে বলেও জানিয়েছেন ব্ল্যাটার।

এর আগে বোতাম টিপে অ্যাকাডেমির উদ্বোধন করেন ফিফা সভাপতি। উদ্বোধন করেন আরামবাগ বালুর মাঠের কৃত্রিম টার্ফেরও।

বাংলাদেশের আতিথেয়তায় ব্ল্যাটার ভীষণ মুগ্ধ। তিনি বলেন, “শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, ফিফার জন্যও এটি বিশেষ একটি দিন। এখানে আসতে পেরে খুব ভালো লাগছে। আপনাদের আতিথেয়তায় আমি সম্মানিত বোধ করছি।”

বাংলাদেশের ফুটবলেরও প্রশংসা করেন তিনি। ফিফা সভাপতি বলেন,

“পাকিস্তানকে হারিয়ে বিশ্বকাপ প্রাক-বাছাই পর্বের দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠেছিলো বাংলাদেশ। এরপর দ্বিতীয় রাউন্ডেও একবার লেবাননকে হারিয়েছিলো। অর্থাৎ বাংলাদেশের ফুটবল ঠিক পথেই এগোচ্ছে ।”

“বাংলাদেশের ফুটবলের প্রতি আমার আস্থা আছে। আস্থা আছে বাফুফের বর্তমান কমিটির ওপরেও,” যোগ করেন তিনি।

ভবিষ্যতে দক্ষিণ এশিয়ায় বিশ্বকাপ আয়োজন সম্ভব কি না এবং বাংলাদেশ বিশ্বকাপের সহ-আয়োজক হতে পারবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে ব্ল্যাটার বলেন, “সেজন্য আরো বেশ কিছু দিন অপেক্ষা করতে হবে। কারণ এরই মধ্যে ২০২২ সাল পর্যন্ত বিশ্বকাপের স্বাগতিক দেশ নির্ধারণ হয়ে গেছে। ২০২৬ সালে এশিয়ায় বিশ্বকাপ হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাই দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোকে অন্তত ২০৩০ সাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।”

“অবশ্য বিশ্বকাপ আয়োজনের জন্য ফিফার কিছু নীতিমালাও আছে। বিশ্বকাপের আয়োজক হতে আগ্রহী একটি দেশে আন্তর্জাতিক ম্যাচ আয়োজনের উপযোগী কমপক্ষে তিন/চারটি ফুটবল স্টেডিয়াম থাকতে হবে। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর জন্য এখন বরং অনূর্ধ্ব-১৬ ও অনূর্ধ্ব-২০ বিশ্বকাপ আয়োজনের চেষ্টা করাই ভালো,” যোগ করেন তিনি।

ফিফা ৭ লাখ ডলার দিতে চাইলেও এই পরিমাণ অর্থে তিন বছর ফুটবল অ্যাকাডেমি চালানো সম্ভব নয় বলে মনে করেন বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিন। তিনি বলেন, “৭ লাখ ডলারে দুই বছরের বেশি কার্যক্রম পরিচালনা করা সম্ভব হবে না। তাই এর সঙ্গে আমাদেরও কিছু টাকা যোগ করতে হবে।”

সংবাদ সম্মেলনের আগে বাংলাদেশ ক্রীড়া লেখক সমিতির আলোকচিত্র প্রদর্শনীরও উদ্বোধন করেন ব্ল্যাটার। এ সময় তিনি বলেন, “আমিও একসময় সাংবাদিক ছিলাম। বর্তমানে আমি আন্তর্জাতিক ক্রীড়া সাংবাদিক সংস্থারও সদস্য।”

সংবাদ সম্মেলনে ব্ল্যাটার ও সালাউদ্দিন ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন এশীয় ফুটবল সংস্থার (এএফসি) ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ঝ্যাং জিলং, ফিফার সদস্য মনিলাল ফার্নন্ডো এবং বাফুফের জ্যেষ্ঠ সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম মুর্শেদী।