ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

মেজাজ খারাপে ‘হাবিজাবি’ খেতে ইচ্ছা করে!

Rate this item
(0 votes)

 

 

 

মন-মেজাজ খারাপ থাকলে অনেকেরই কেন ‘জাঙ্কফুড’ বা হাবিজাবি খেতে ইচ্ছা করে, আর মন-মেজাজ ভালো থাকলে কেন সবাই স্বাস্থ্যকর খাবারদাবার খেতে চান—তা নিয়ে বহু কথাবার্তাই হয়েছে। তবে, মানুষ ভিন্ন ভিন্ন মানসিক পরিস্থিতিতে কীভাবে আবেগ-অনুভূতি দ্বারা পরিচালিত হয় এবং এ সময় খাবারদাবারের বিষয়ে তাঁরা কী বেছে নেন, সে সম্পর্কে নতুন আলোকপাত করেছেন গবেষকেরা। বার্তা সংস্থা আইএএনএস এক প্রতিবেদনে এ কথা জানিয়েছে।
মনোবিজ্ঞান গবেষক গার্ডনার এম ওয়ানশিঙ্ক বলেন,

ধারণা করা হয় যে অস্বস্তিকর অবস্থায় থাকলে বা মেজাজ খারাপ থাকলে সবাই বুঝতে পারে যে কোথাও একটা কিছু গড়বড় হচ্ছে। তাই মানুষ তখন হাতের কাছে কী আছে বা এই মুহূর্তে কী করা যায়, তা নিয়েই ভাবেন। এ ধরনের পরিস্থিতিতে খাবারের পুষ্টিমান নিয়ে চিন্তা না করে কোথায় হাতের কাছে কী পাওয়া যাচ্ছে, তার দিকেই মানুষ আকৃষ্ট হন।’
এই অবধারণার ওপর ভিত্তি করে দুই দল মানুষের ওপর একটি জরিপ চালান মনোবিজ্ঞানীরা। প্রথমে তাঁরা দেখার চেষ্টা করেন মন-মেজাজ ভালো অবস্থায় মানুষ খাবারদাবার নিয়ে কী ভাবেন এবং কী খেতে পছন্দ করেন। দেখা গেছে, এ অবস্থায় খাবারের পুষ্টিমান এবং খাবারটা তরতাজা কি না, খাবারটা কতটা সুস্বাদু ইত্যাদি নিয়ে ভাবেন ভোক্তারা।

দ্বিতীয় পর্যায়ে গবেষকেরা দেখার চেষ্টা করেন, মেজাজ খারাপ থাকলে বা কারও মন খারাপ থাকলে খাবারদাবারের বিষয়ে তাঁদের প্রতিক্রিয়া কী হয়। একটা মন খারাপ-করা গল্প পড়েছেন বা ছবি দেখেছেন বা কোনো কারণে কারও সঙ্গে ঝগড়াঝাঁটি হয়েছে, সে অবস্থায় তাঁরা কেমন খাবার খেতে চান। দেখা গেছে, এমন সময়ে জাঙ্কফুড বা হাবিজাবি খাবারই পছন্দ করছেন তাঁরা।

গবেষকেরা বলছেন, স্বাভাবিক মানসিক অবস্থায় মানুষ ভবিষ্যত্ স্বাস্থ্যের বিষয়ে সচেতন থাকেন এবং তাই ভালো ও পুষ্টিকর খাবারদাবার খাওয়ার কথা চিন্তা করেন। আর যখন মন-মেজাজ খারাপ থাকে তখন অত কিছু ভাবনা-চিন্তা না করে খেতে সুস্বাদু একটা কিছু বেছে নিতে চান ভোক্তারা।

‘জার্নাল অব কনজিউমার সাইকোলজি’তে সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে এই গবেষণা প্রতিবেদন।