ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

ব্রণকে করুন চটজলদি উধাও!

Rate this item
(0 votes)

আমরা প্রতিনিয়তই ব্রণ সমস্যার মধ্যে পড়ে থাকি। ব্রণে ওঠার অবশ্য নির্দিষ্ট কোনো বয়সসীমা নেই। যেকোনো বয়সেই ব্রণের আক্রমণের শিকার হতে হয়। তবে সবচেয়ে বেশি এই ব্রণ আক্রমণের শিকার হন কমবয়সী মেয়েরা।

ব্রণ মূলত একধরনের ফুসকুঁড়ি যা অনেক সময় পুঁজে পূর্ণ থাকে, ত্বকের ক্ষত, ত্বকের প্রদাহ যা কালো দাগ বা চিহ্ন হয়ে থাকে। এগুলো কয়েক ধরনের হয়। ত্বকের বৈশিষ্ট্য অনুযায়ী ময়লা-পুঁজ জমে ছিদ্র বন্ধ হয়ে কালো বা সাদা মাথা বিশিষ্ট গোটার মত ওঠা, সিস্ট বা পুঁজকোষ, আঁশ সদৃশ লাল ত্বক ইত্যাদি দেখা দেয়।

এই ব্রণ বিভিন্ন কারণে হয়ে থাকে। যেমন :

- অপরিষ্কার ত্বক বা নোংরা ত্বকে ব্যাকটেরিয়া প্রদাহের কারণে।
- ত্বকের ছদ্রি পথে র্চবি আটক, ময়লা-ধুলা জমার ফল।
- মেকআপ দ্রব্য বা উপাদানের কারণে ত্বকের ছিদ্রপথ বন্ধ হওয়ার ফলে।
- মৃত কোষ একজায়গায় জমে ত্বকে আস্তর পড়া কিংবা ময়লা জমে আস্তর পড়া থেকে।
- অস্বাস্থ্যকর জীবন-যাপন আর অস্বাস্থ্যকর খাবার-দাবারে অভ্যস্ত হওয়া থেকে।
- অতিরিক্ত তেলজাতীয় আজে-বাজে খাবার খাওয়ার ফলে।
- র্পযাপ্ত পানি পান না করার ফলে।

এমন অনেক কারণেই ব্রণ হতে পারে। তবে সবচেয়ে বিরক্তের বিষয় হল যখন কোনো বিশেষ কাজ বা প্রোগ্রাম থাকে তখন যদি ব্রণ হয়। এজন্য এসব ব্রণ থেকে দ্রুত মুক্তি লাভে প্রয়োজন কিছু নিয়ম মেনে চলা। যেমন :

১. বারবার মুখ পরিস্কার করুন :
মুখে ময়লা জমলে ব্রণ হওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে। এজন্য যতটা সম্ভব মুখ পরিস্কার রাখুন। মাঝে মাঝেই মুখেই পানির ঝাপটা দিন। এতে মুখের অতিরিক্ত তেল অপসারিত হবে।

২. ভালোভাবে মেকআপ তুলুন :
অনেক কারণেই আমাদের মাঝেমাঝে মেকআপ করতে হয়। কিন্তু মেকআপের পর আমরা ভালোভাবে মেকআপ উঠাই না। এর ফলে মুখে জমে থাকা মেকআপের জার্ম থেকে ব্রণ হতে পারে। এজন্য সবসময় ভালোভাবে মেকআপ তুলে ফেলুন। মেকআপ উঠানোর জন্য ক্লিনজার, লোশন অথবা নারিকেল তেল ব্যবহার করুন।

৩. যা ব্যবহার করবেন না :
অনেকেই ব্র্যান্ড ছাড়া এমন অনেক কিছুই মুখে লাগান যা থেকে ব্রণ হতে পারে। ব্র্যান্ড ছাড়া কোনো কিছু মুখে লাগাবেন না। আপনার ত্বক বুঝে যেকোনো একটি ব্যান্ড ব্যবহার করুন।

৪. খাদ্যাভাসে পরিবর্তন :
এমন অনেক তেলযুক্ত খাবার আছে যা ব্রণ তৈরিতে সহায়তা করে। যেমন ডুবো তেলে ভাজা খাবার, অতিরিক্ত মশলাযুক্ত খাবার। এসব ভুল খাদ্যাভাস পরিহার করুন। অনিয়মিত খাবার গ্রহণ থেকে বিরত থাকুন। অতিরিক্ত চা, কফি এবং তামাক সেবন থেকে বিরত থাকুন। ব্রণ নির্মূলে সবজি অনেক উপকারী। এজন্য খাবার মেন্যুতে সবজি বেশি করে রাখুন এবং প্রয়োজনে কিছু কাঁচা সবজি গাজর শসা ইত্যাদি খেতে পারেন।

৫. বেশি করে পানি পান করুন :
ব্রণ থেকে দ্রুত মুক্তি পেতে বেশি করে পানি পান করুন। দিনে কমপক্ষে ৮-১০ গ্লাস পানি খান। এতে পানির সাথে আপনার ত্বকের ময়লাগুলো বের হয়ে যাবে। ফলে ব্রণ দ্রুত নির্মূল হয়ে যাবে।