ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

এই সময়ে শিশুর যত্ন

Rate this item
(0 votes)

শীতের পর বইছে বসন্তের বাতাস। ঋতু পরিবর্তনের এই সময়ে শিশুর শরীরের ওপর প্রভাব পড়ে। সাধারণ ঠান্ডা লাগা, হাঁচি, কাশি হয়ে থাকে। হতে পারে সামান্য জ্বরও। এ বিষয়ে বারডেম হাসপাতালের শিশু বিভাগের প্রধান তাহমিনা বেগম বলেন, সামান্য অসাবধানতায় এ সময় সাধারণ ঠান্ডা লাগা বা ফ্লু থেকে শুরু করে হতে পারে নিউমোনিয়া কিংবা ব্রংকিওলাইটিস। তবে ব্রংকিওলাইটিস ও নিউমোনিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা অনেক বেশি। সাধারণ ঠান্ডা লাগা বা ফ্লু থেকে শিশুদের

নাক দিয়ে পানি বের হতে থাকে, হাঁচি ও কাশি হয়।
সাধারণ সর্দি-কাশিতে শিশুর যত্ন
শিশুকে আবহাওয়া অনুযায়ী পোশাক পরাতে হবে। বেশি কাপড় বা মোটা কাপড় পরিয়ে রাখবেন না। এতে শিশু ঘেমে আরও ঠান্ডা লেগে যেতে পারে। রাতে কোনোভাবেই সোয়েটার পরানো উচিত নয়। কাশি থাকলে শিশুকে গরম পানির সঙ্গে লেবু ও চিনি বা গরম পানির সঙ্গে মধু মিশিয়ে পাঁচ-ছয় চা-চামচ করে দিনে চার-পাঁচবার খাওয়ান। সর্দি হয়ে শিশুর নাক বন্ধ হয়ে থাকলে সাধারণ স্যালাইন (খাওয়ার স্যালাইন) ড্রপারের সাহায্যে শিশুর দুই নাকের উভয় ছিদ্রে দুই থেকে তিন ফোটা দিন এবং কটনবাড দিয়ে নাক ভালোভাবে পরিষ্কার করে দিতে হবে। এভাবে শিশুকে প্রতিবার খাওয়ার আগে ও ঘুমের আগে এটা করুন। নাক পরিষ্কার করার জন্য সরিষার তেল ব্যবহার করা যাবে না। শ্বাসকষ্ট থাকলে শিশুরা ঠিকমতো খেতে পারে না, তাই কিছুক্ষণ পর পর অল্প করে দুধ খাওয়াতে হবে। বেশি কাশি হলে নেবুলাইজেশন করানো যেতে পারে। এরপরেও শিশু বেশি অসুস্থ বোধ করলে, জ্বর বেশি থাকলে, বুকে গড় গড় আওয়াজ হলে বা শ্বাসকষ্ট শুরু হলে শিশুকে তাড়াতাড়ি হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে।
প্রতিরোধ
আবহাওয়া পরিবর্তনজনিত রোগ সহজেই প্রতিরোধ করা যায়। শিশুর অভিভাবক বা যাঁরা শিশুর লালন-পালনের দায়িত্বে থাকেন, তাঁদের অবশ্যই আবহাওয়ার পরিবর্তন বুঝতে হবে। দিন ও রাতের যে সময়ে গরম অনুভূত হয়, তখন বেশি গতিতে ফ্যান চালানো যাবে না, শেষ রাতের দিকে ফ্যান বন্ধ করতে হবে। অনেক সময় শুধু ফ্যানের বাতাসের কারণে শিশু বিভিন্ন জটিলতায় আক্রান্ত হয়। তাই সতর্কতামূলক হিসেবে রাতে শোয়ার সময় শিশুর শরীরে পাতলা নরম কাপড়ের পোশাক পরাতে হবে। মৌসুমি রোগ প্রতিরোধের আর একটি উপায় হচ্ছে সুষম ও ভিটামিনযুক্ত খাবার খেতে শিশুকে আগ্রহী করে তোলা। এই খাদ্যের তালিকায় থাকতে পারে শাকসবজি, মৌসুমি বিভিন্ন ফল, মাছ-মাংস, ভাত, ডাল ইত্যাদি দেশি খাবার। পরিবারের কেউ যদি ভাইরাল জ্বরে আক্রান্ত থাকে, তাহলে সে যেন শিশু থেকে দূরে থাকে।
যদি একেবারেই খেতে না পারে তাহলে অবশ্যই শিশুকে কাছের কোনো চিকিৎসাকেন্দ্রে নিয়ে যেতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।