ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Friday, 28 February 2014 18:36

শ্রীলঙ্কায় যুদ্ধাপরাধের আন্তর্জাতিক তদন্ত চায় জাতিসংঘ

Rate this item
(0 votes)

জাতিসংঘ মানবাধিকার পরিষদ (ইউএনএইচসিআর) এর প্রধান নাভি পিল্লাই শ্রীলঙ্কায় বিচ্ছিন্নতাবাদী তামিল টাইগারদের (এলটিটিই) সঙ্গে সরকারি বাহিনীর যুদ্ধের চূড়ান্ত পর্যায়ে যুদ্ধাপরাধের অভিযোগের আন্তর্জাতিক তদন্তের সুপারিশ করেছেন।


রবিবার স্থানীয় সানডে টাইমসের এক খবরে বলা হয়েছে, নাভি পিল্লাই ইউএনএইচসিআরকে একটি নিরপেক্ষ তদন্ত কমিটি গঠনের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, বারবার আহ্বান সত্ত্বেও কলম্বো বরাবরই সত্য প্রকাশ ও নৃশংসতার জবাবদিহিতা নিশ্চিত করতে ব্যর্থ হয়েছে।
তিনি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ও মানবিক সহায়তা আইন লঙ্ঘনের অভিযোগের অধিকতর তদন্তে এবং যেকোনো ধরনের অভ্যন্তরীণ জবাবদিহিতা প্রক্রিয়া পর্যবেক্ষণে একটি আন্তর্জাতিক তদন্ত কমিটি গঠন করতে হবে।’
জেনেভায় আগামী মাসে ইউএনএইচসিআর এর অধিবেশনের জন্য তৈরি করা নাভি পিল্লাইয়ের একটি প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে সানডে টাইমস এ খবর প্রকাশ করেছে। ওই প্রতিবেদনের একটি আগাম কপি পর্যবেক্ষণের জন্য কলম্বোকে দেওয়া হয়েছে। প্রতিবেদনে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে মানবাধিকার ও অব্যাহতভাবে গণতান্ত্রিক স্বাধীনতা লঙ্ঘনের ঘটনা তদন্তে ব্যর্থতার অভিযোগ করা হয়েছে।
এ ব্যাপারে শ্রীলঙ্কার পররাষ্ট্র দপ্তরের তাৎক্ষণিক কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে কলম্বো বার বার দাবি করে আসছে, তাদের সৈন্যরা কোনো যুদ্ধাপরাধ করেনি।
তবে সংখ্যাগরিষ্ঠ সিংহলী ও সংখ্যালঘু তামিলদের মধ্যে পারস্পরিক সমঝোতা নিশ্চিত করতে আরো সময়ের প্রয়োজন বলে দাবি করা হয়েছে।
শ্রীলঙ্কায় ২০০৯ সালের মে মাসে বিচ্ছিন্নতাবাদী তামিল টাইগারদের সঙ্গে সরকারি বাহিনীর যুদ্ধের সমাপ্তি ঘটে। নাভি পিল্লাই তার প্রতিবেদনে যুদ্ধের শেষ পর্যায়ে সংঘটিত যুদ্ধাপরাধের প্রমাণ উল্লেখ করেছেন।
জাতিসংঘ এর আগে শ্রীলঙ্কায় যুদ্ধের শেষ মাসগুলোতে কমপক্ষে ৪০ হাজার বেসামরিক তামিল নিহত এবং সরকারি বাহিনীর বিরুদ্ধে অসংখ্য নৃশংসতার অভিযোগ করেছিল। তবে কলম্বো দৃঢ়ভাবে এ অভিযোগ নাকচ করেছিল।