ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Friday, 28 February 2014 17:47

ক্যান্সার মহামারির ঝুঁকিতে লাতিন আমেরিকা

Rate this item
(0 votes)

লাতিন আমেরিকার দেশগুলোতে ক্যান্সার মহামারি আকারে ছড়িয়ে পড়তে পারে বলে সতর্ক করেছেন গবেষকরা। তাঁদের হিসাবে, এসব দেশে যুক্তরাষ্ট্র কিংবা ইউরোপের চেয়ে ক্যান্সার আক্রান্তের হার কম হলেও এতে মারা যাওয়ার সংখ্যা অনেক বেশি। সঠিক সময়ে রোগ নির্ণয় না হওয়াসহ যথাযথ চিকিৎসার অভাবই মূলত মহাদেশটিতে ক্যান্সারে মৃত্যুহার বাড়াচ্ছে।
নিউ ইয়র্ক ভিত্তিক ক্যান্সারবিষয়ক সাময়িকী ল্যানসেট অনকোলজিতে গত শুক্রবার প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বিষয়টি উঠে এসেছে। এদিন ব্রাজিলের সান পাওলোতে অনুষ্ঠিত ল্যাটিন আমেরিকান কো-অপারেটিভ অনকোলজি গ্রুপের (এলএসিওজি) সম্মেলনেও বিষয়টি তোলা হয়। গবেষকরা বলছেন, জরুরিভিত্তিতে এখনই তামাকের ব্যবহার কমানো ও স্থূলতা প্রতিরোধসহ ক্যান্সার নিয়ন্ত্রণে নানা ধরনের প্রতিরোধী ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। ২০৩০ সাল নাগাদ লাতিন আমেরিকা ও ক্যারিবীয় অঞ্চলের ১০ লাখ ৭০ হাজার মানুষের ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি রয়েছে। লাতিন আমেরিকা ও ক্যারিবীয় অঞ্চলের দেশগুলোতে ক্যান্সারের বিস্তার এবং এর চিকিৎসা পর্যবেক্ষণের ভিত্তিতে প্রতিবেদনটি তৈরি করা হয়েছে।


বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ অঞ্চলে মানুষের গড় আয়ু বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে ক্যান্সার একটি সাধারণ ব্যাধিতে পরিণত হচ্ছে। বেশির ভাগ দেশই রোগটি নিয়ন্ত্রণে হিমশিম খাচ্ছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এখানকার মানুষ আগের চেয়ে বেশি আয়েশি জীবনযাপন করছে। অস্বাস্থ্যকর খাবার খাচ্ছে। তাদের তামাক সেবন ও অ্যালকোহল পানের মাত্রা বেড়েছে। কঠিন (কয়লা, কাঠ ইত্যাদি) জ্বালানি ব্যবহারের কারণে দূষণও এর পেছনে দায়ী বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে।
পরিসংখ্যান অনুযায়ী, লাতিন আমেরিকার প্রতি লাখে ক্যান্সারে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ১৬৩। যুক্তরাষ্ট্রে এ সংখ্যা ৩০০ ও ইউরোপে ২৬৪। অথচ যুক্তরাষ্ট্রে এ রোগে ৩৭ জনের মধ্যে মারা যায় ১৩ জন। ইউরোপে ৩০ জনের মধ্যে মারা যায় ১৩ জন। সেখানে লাতিন আমেরিকায় ২২ জনের মধ্যে মারা যায় ১৩ জন।