ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Friday, 28 February 2014 17:23

পানি, স্যানিটেশন সুবিধা নিশ্চিত করা জরুরী: ইউরোপীয় ইউনিয়ন রাষ্ট্রদূত

Rate this item
(0 votes)

ঢাকায় নিযুক্ত ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) রাষ্ট্রদূত উইলিয়াম হাননা বলেছেন, সুশাসন প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়ন বিভিন্ন প্রকল্পে সহযোগিতা দিয়ে থাকে। আর সুশাসন প্রতিষ্ঠায় সকল মানুষের জন্য পানি ও স্যানিটেশন সুবিধা নিশ্চিত করা জরুরী। তাই দূর্গম এলাকায় পানি ও স্যানিটেশন সুবিধা নিশ্চিত করতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। আজ বুধবার দুপুরে রাজধানীর লালমাটিয়ায় এনজিও ফোরাম কনফারেন্স হলে এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইইউ রাষ্ট্রদূত বলেন, ইইউ তাদের কাজে তিনটি বিষয়ের মধ্যে সংযোগ স্থাপন করে থাকে। এর মধ্যে রয়েছে- আন্তর্জাতিক অঙ্গনে গৃহীত পদক্ষেপ, দেশের মধ্যে সরকারের অঙ্গীকার ও সরকারী বেসরকারী পদক্ষেপ এবং স্থানীয় পর্যায়ে চাহিদার ভিত্তিতে সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবস্থাপনা। এর মাধ্যমে ইইউ সমাজের সবচেয়ে দরিদ্র ব্যক্তির কাছে সেবা পৌঁছে দিতে চায়।

এ সময় নতুন প্রকল্পের উদ্বোধন ঘোষণা করে উইলিয়াম হাননা বলেন, এই প্রকল্প বাস্তবায়নের মাধ্যমে অনেক দূর্গম এলাকায় পানি ও স্যানিটেশন সুবিধা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে। তবে সেটা সকল দূর্গম এলাকার মানুষ পাবে না। সকলের জন্য এই সুবিধা নিশ্চিত করতে তিনি সরকারী ও বেসরকারী পর্যায়ে সমন্বিত পদক্ষেপ গ্রহণের আহ্বান জানান।

অনুষ্ঠানে আরো জানানো হয়, দূর্গম এলাকায় পানি ও স্যানিটেশন সুবিধা নিশ্চিত করতে প্রায় সাড়ে ৪৫ কোটি টাকার এই প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। চার বছর মেয়াদী এই প্রকল্প দেশের ২৫টি জেলার ২৭টি উপজেলার ৫৯টি ইউনিয়নে বাস্তবায়ন হবে।

আজ ইইউর সহযোগিতায় এনজিও ফোরামের নেওয়া স্থানীয় সরকার ও সুশীল সমাজের দক্ষতা উন্নয়নের মাধ্যমে পানি ও স্যানিটেশন খাতে সুশাসন নিশ্চিত করুন শীর্ষক প্রকল্পের উদ্বোধন করেন তিনি। এনজিও ফোরামের সভাপতি মিসেস তাহেরুন নেসা আব্দুল্লাহর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন জনস্বাস্থ্য ও প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী মো. নূরুল ইসলাম ও এনজিও ফেডারেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আবু তাহের খান। এ ছাড়াও আলোচনায় অংশ নেন ওয়াটার এইড এর বাংলাদেশ প্রতিনিধি ড. খায়রুল ইসলাম, এনজিও ফোরামের নির্বাহী পরিচালক এস এম এ রশিদ এবং তথ্য ও গবেষণা বিভাগের প্রধান জোসেফ হালদার।