ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Thursday, 27 February 2014 20:34

সিরিয়ায় হামলা নিয়ে চাপের মুখে ওবামা-ক্যামেরন

Rate this item
(0 votes)

সিরিয়ার ওপরে সম্ভাব্য সশস্ত্র হামলা পিছিয়ে দেওয়ার জন্য ক্রমে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রের ওপরে চাপ বাড়ছে। জাতিসংঘের মহাসচিব বান কি মুন আজ বুধবার বলেন, সিরিয়াতে জাতিসংঘের পর্যবেক্ষকদের আরও কিছুটা সময় দেওয়া প্রয়োজন। ‘দ্য গার্ডিয়ান’ বলছে, মহাসচিবের এ ঘোষণার পর আন্তর্জাতিক মহলের ব্যাপক চাপের মুখে পড়েছে যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্র।
বান কি মুন বলেন, সিরিয়াতে রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার হয়েছে হয়েছে কি না, সেটি নিশ্চিত হওয়ার জন্য নমুনা সংগ্রহে আরও চারদিন সময় লাগবে। পুরো প্রতিবেদন দাখিলে প্রয়োজন হবে আরও কয়েকদিন।


মহাসচিব আজ জাতিসংঘের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদে (এনএসসি) দেড় ঘণ্টা বক্তব্য রাখেন। সেখানে তিনি সিরিয়া আক্রমণের বিভিন্ন দিক নিয়ে আলোচনা করেন। তবে সভায় সিরিয়া আক্রমণ নিয়ে কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি।
লন্ডন ও ওয়াশিংটনের সূত্রের বরাত দিয়ে ‘দ্য গার্ডিয়ান’ বলছে, এ সপ্তাহের শেষে স্বল্পমাত্রার আক্রমণ শুরু হতে পারে।
যুক্তরাষ্ট্রের প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন হামলার ব্যাপারে ব্যাপক আগ্রহী। তবে তিনি এ ব্যাপারে সতর্ক যে জাতিসংঘের উদ্যোগ সিরিয়া আক্রমণের সময়সূচি পিছিয়ে দিতে পারে। এদিকে যুক্তরাজ্যের বিরোধী দল লেবার পার্টি বলছে, তারা সরকারকে কেবল তখনই সমর্থন করবে, যখন সিরিয়ায় হামলার সিদ্ধান্ত নেবে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ এবং জাতিসংঘের পরিদর্শকেরা নিশ্চিত করবেন যে, রাসায়নিক হামলার পেছনে সিরীয় সেনাবাহিনীর হাত আছে।

নেদারল্যান্ডের হেগে এক সংবাদ সম্মেলনে বান কি মুন বলেন, সিরিয়াতে পরীক্ষানিরীক্ষার জন্য জাতিসংঘের পর্যবেক্ষকদের আরও কয়েকদিন সময় লাগবে। পর্যবেক্ষকেরা মাত্র দ্বিতীয় দিনের মতো কাজ করছেন। তিনি বলেন, ‘খুব, খুব ভয়াহব পরিস্থিতিতে তাঁরা (পর্যবেক্ষকেরা) কঠোর পরিশ্রম করছেন। তাঁদের আরও চারদিন কাজ করতে দেওয়া হোক, এরপর বিশেষজ্ঞরা সব নমুনা বৈজ্ঞানিকভাবে পরীক্ষা করুন, তারপর আমি মনে করি নিরাপত্তা পরিষদ যদি কোনো ব্যবস্থা নিতে চায়, তবে তা নেওয়া হোক।’

 

জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠক শেষে ডেভিড ক্যামেরন টুইটারে এক বার্তা পোস্ট করেন। সেখানে তিনি লিখেছেন, ‘এনএসসি এ ব্যাপারে একমত হয়েছে যে আসাদের রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহার অগ্রহণযোগ্য। এবং এতে বিশ্বের চুপ করে থাকার কোনো সুযোগ নেই।’

এদিকে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাসার আল আসাদের পক্ষের লোকেরা পশ্চিমাদের বিরুদ্ধে বাকযুদ্ধ শুরু করেছেন। দেশটির উপ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফয়সাল মাকদাদ আজ অভিযোগ করেছেন, ফ্রান্স, ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্র ‘সন্ত্রাসীদের’ রাসায়নিক অস্ত্র ব্যবহারে সহযোগিতা করছে। তিনি আরও বলেন, এর ফলে ইসলামি জঙ্গিরা শিগগিরই ইউরোপের মানুষের ওপরে আবারও রাসায়নিক হামলা চালাতে পারে।

 

 

 

Last modified on Friday, 07 March 2014 19:34