ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Thursday, 27 February 2014 20:25

সুর নরম করছে যুক্তরাষ্ট্র!

Rate this item
(0 votes)

 

 

 

সিরিয়া সংকট নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র কি তার অবস্থান নমনীয় করছে! মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি সুর নরম করে গতকাল সোমবার বলেছেন, সামরিক অভিযান নয়, সিরিয়া সংকট সমাধান করতে হবে রাজনৈতিকভাবেই। তবে রাসায়নিক অস্ত্রের ব্যবহারকারী সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদের পক্ষে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় দাঁড়াতে পারে না।


অন্যদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ওবামার ঘনিষ্ঠ শীর্ষ কর্মকর্তা ডেনিস ম্যাকডোনাগ গত রোববার বলেন, সিরিয়ায় রাসায়নিক হামলার বিষয়ে বাশার সরকারের বিরুদ্ধে ‘অকাট্য’ প্রমাণ পাওয়া যায়নি। প্রেসিডেন্ট বাশারও বলেছেন, তাঁর সরকার রাসায়নিক হামলা চালিয়েছে—এর পক্ষে যুক্তরাষ্ট্রের কাছে কোনো প্রমাণ নেই। আর সিরিয়ায় হামলা হলে দামেস্কের মিত্ররা পাল্টা জবাব দেবে। সিরিয়ায় মার্কিন অভিযানের পক্ষে সমর্থন বাড়াতে ইউরোপ সফরের অংশ হিসেবে গতকাল সোমবার লন্ডন সফর করেন কেরি। সেখানে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইলিয়াম হেগের সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। পরে সংবাদ সম্মেলনে কেরি বলেন, ‘আমি স্পষ্ট করে বলছি, যুক্তরাষ্ট্র, প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাসহ অনেকেই একমত, সিরিয়ার সংকটের সমাধান রাজনৈতিকভাবে হোক। সামরিক অভিযান কোনো সমাধান নয়, এ ব্যাপারে আমাদের কোনো সংশয় নেই।’ সংবাদ সম্মেলনে হেগ  লেন, যুক্তরাজ্য সিরিয়ায় মার্কিন সামরিক অভিযানে অংশ না নিলেও সব কূটনৈতিক সমর্থন দিয়ে যাবে। মার্কিন প্রেসিডেন্টের ঘনিষ্ঠ শীর্ষ কর্মকর্তা ডেনিস বলেন, ‘সাধারণ বিবেচনায় সিরিয়ায় রাসায়নিক হামলার জন্য প্রেসিডেন্ট বাশার দায়ী। এ জন্য তাঁকে জবাবদিহির আওতায় আনা উচিত। এর আগে এক সাক্ষাৎকারে ডেনিস বলেছিলেন, সিরিয়ায় রাসায়ানিক হামলায় বাশারের সম্পৃক্ততার বিষয়ে ‘কোনো সন্দেহ নেই’। মার্কিন টেলিভিশন নেটওয়ার্ক পাবলিক ব্রডকাস্টিং সার্ভিসকে (পিবিএস) দেওয়া সাক্ষাৎকারে প্রেসিডেন্ট বাশার বলেন, ‘আমি আমার জনগণের বিরুদ্ধে রাসায়নিক হামলা চালিয়েছি—এমন কোনো প্রমাণ যুক্তরাষ্ট্রের কাছে নেই।’ তিনি বলেন, সিরিয়ায় হামলা হলে মিত্ররাও পাল্টা জবাব দেবে। এই মুহূর্তে সিরিয়ার অন্যতম মিত্র হলো জাতিসংঘের স্থায়ী সদসরাষ্ট্র রাশিয়া ও চীন। এ ছাড়া ইরানের পাশাপাশি লেবাননের কট্টরপন্থী সংগঠন হিজবুল্লাহকেও পাশে পাচ্ছে সিরিয়া। এদিকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট আজ মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন। এই ভাষণে তিনি সিরিয়ায় সামরিক হামলার বিষয়ে যুক্তি তুলে ধরতে পারেন। মার্কিন কংগ্রেস অধিবেশন শুরুর প্রাক্কালে ওবামার এই ভাষণ বেশ গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করা হচ্ছে। কারণ এই অধিবেশনে সীমিত অভিযানের বিষয়ে ভোট দেবেন মার্কিন আইনপ্রণেতারা। সিরিয়াকে রাসায়নিক অস্ত্রত্যাগের পরামর্শ রাশিয়ার: যুক্তরাষ্ট্র ও পশ্চিমা দেশগুলোর সম্ভাব্য হামলা এড়াতে মজুত থাকা রাসায়নিক অস্ত্র ত্যাগ করতে সিরিয়াকে পরামর্শ দিয়েছে রাশিয়া। গতকাল মস্কোয় সিরিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়ালিদ মুয়াল্লেমের সঙ্গে বৈঠকে এ পরামর্শ দেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ। লাভরভ পরে বলেন, মুয়াল্লেম তাঁর প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়েছেন এবং নিশ্চয়তা দিয়েছেন সিরিয়া এখনো শান্তি আলোচনা করতে প্রস্তুত। রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদকে উদ্দেশ করে বলেন, সংঘাত এড়াতে আন্তর্জাতিক কর্তৃপক্ষের কাছে রাসায়নিক অস্ত্র সমর্পণ করুন, যাতে তারা সেগুলো ধ্বংস করে ফেলতে পারে।