ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Rate this item
(0 votes)

যুক্তরাষ্ট্রের কলোরাডো রাজ্যের ডেনভার শহরে গাঁজা সেবনকারীদের সবচেয়ে বড় উত্সব ‘৪/২০’ বা ‘৪২০’ উদযাপন চলছে। এ উৎসব উপলক্ষে গতকাল শনিবার থেকেই ডেনভারের সিভিক সেন্টারে জড়ো হয়েছে ৮০ হাজারেরও বেশি গাঁজাসেবী।

ডেইলি মেইলের খবরে বলা হয়, বেশ কয়েক বছর আগে থেকেই গাঁজাসেবীদের মধ্যে ‘৪২০’ সংখ্যাটি জনপ্রিয় হয়ে ওঠে। বর্তমানে এটি মারিজুয়ানা সেবনকারীদের কোড সংখ্যায় পরিণত হয়েছে।

বিগত কয়েক বছর ধরেই এ সংখ্যাটিকে উদযাপন করে আসছে গাঁজাসেবীরা। এ বছর সংখ্যাটি উদযাপনের মোক্ষম দিন হিসেবে তাঁরা বেছে নিয়েছে এপ্রিলের ২০ তারিখকে। মার্কিনিরা তারিখ লেখার সময় মাস আগে লেখে ও তারিখ পরে লেখে। সে হিসেবে এপ্রিলের ২০ তারিখের লিখিত রূপ হলো ৪/২০। আর এটি থেকে বিভক্তি চিহ্ন (/) সরিয়ে দিলে দাঁড়ায় ৪২০।

সম্প্রতি কলোরাডোয় ‘বিনোদনমূলক মারিজুয়ানা’ বিক্রির বিষয়টি অঙ্গরাজ্য সরকারের অনুমোদন পেয়েছে। আর এ কারণেই এ বছরের উদযাপন স্থল হিসেবে কলোরাডোর ডেনভার শহরকে বেছে নেওয়া হয়েছে।

উত্সব উপলক্ষে গতকাল থেকেই ডেনভারের সিভিক সেন্টারে জড়ো হচ্ছেন মারিজুয়ানা সেবকরা। তবে এ উত্সবকে কেবল গাঁজা সেবনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখেননি আয়োজক ও অংশগ্রহণকারীরা। এটি রীতিমতো একটি সাংস্কৃতিক উৎসবে পরিণত হয়েছে।

তবে প্রকাশ্যে মারিজুয়ানা সেবন নিষিদ্ধ হওয়ায় ইতিমধ্যে উত্সবস্থল থেকে প্রায় ২৫ জনের মতো ব্যক্তিকে আটক করেছে পুলিশ। উত্সবস্থল ঘিরে ব্যাপক নিরাপত্তাব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

‘৪২০’ কোডের ইতিবৃত্ত
১৯৭১ সালে, উত্তর ক্যালিফোর্নিয়ার সান রাফায়েল হাইস্কুলের পাঁচ কিশোরের একটি দল ছিল। দলটির সদস্যরা ‘ওয়াল্ডো’ নামে পরিচিত ছিল। এই ওয়াল্ডো বাহিনী প্রায়ই স্কুল ফাঁকি দিয়ে মারিজুয়ানার খেতে গুপ্তধন খুঁজতে যেত। আর সেই অল্প বয়স থেকেই তারা দস্তুরমতো গাঁজাসেবী হয়ে ওঠে।

পাঁচ বন্ধুর এই দলটিই ‘৪২০’ সংখ্যাটিকে কোড সংখ্যা হিসেবে ব্যবহার করতে শুরু করে। এর সেই থেকেই ধীরে ধীরে তা গাঁজা সেবনকারীদের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে।