ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Wednesday, 05 March 2014 17:43

হলিউড : ২০১৩

Rate this item
(0 votes)

আয়রন ম্যান থ্রি

রবার্ট ডাউনি জুনিয়র অভিনীত ‘আয়রন ম্যান’ সিরিজ গত দুই বছর ধরে পর্দা কাঁপানোর পর আবারও ফিরে আসছে ‘আয়রন ম্যান থ্রি’ নিয়ে। ‘মার্ভেলস দি অ্যাভেঞ্জার্স’ ২০১২ সালে সবচাইতে বেশি আয় করে হলিউডের ইতিহাসের পাতায় তিন নম্বর  সর্বোচ্চ আয়কারী সিনেমা হিসেবে নাম লেখানোর পর, এখন ভক্তদের কাছে সুপারহিরো মুভির চাহিদা বেড়ে গিয়েছে কয়েকগুণ বেশি। আর তাই রবার্ট ডাউনি জুনিয়রকে আবারও আয়রন ম্যানের স্যুটে দেখার জন্য উদগ্রীব অনেকেই।

তবে ‘দি অ্যাভেঞ্জার্স’-এর পর সুপারহিরো মুভি নিয়ে দর্শকদের প্রত্যাশার পারদ এখন অনেক উঁচুতে। শেইন ব্ল্যাকের রচনা এবং পরিচালনায় ‘আয়রন ম্যান থ্রি’ কি পারবে সেই প্রত্যাশা পূরণ করতে? নতুন প্রতিদ্ব›দ্বী ছাড়াও পুরনো শত্রু ‘দ্যা ম্যান্ডারিন’এর সঙ্গে লড়াইটা এবার কতোখানি জমবে ‘আয়রন ম্যান’-এর?

এসব প্রশ্নের উত্তরের জন্য অপেক্ষা করতে হবে মে মাসের ৩ তারিখ পর্যন্ত। কারণ, এদিনই যে মুক্তি পাবে এবছরের ‘মাস্ট ওয়াচ মুভি’র তালিকার এক নম্বরে থাকা ‘আয়রন ম্যান থ্রি’।

 

দি হাঙ্গার গেইমস: ক্যাচিং ফায়ার

সুজান কলিন্সের উপন্যাসের ওপর নির্মিত ‘হাঙ্গার গেইমস’ ২০১২-এর বসন্তে পুরো হলিউড মাতানোর পর এবছর ফিরে আসছে আবারও। গত বছর ‘টোয়াইলাইট’ এবং ‘স্কাইফল’এর সঙ্গে বক্স অফিসে পাল্লা দিয়ে বছরের সর্বোচ্চ আয়কারি সিনেমাগুলোর মধ্যে তৃতীয় হবার পর জেনিফার লরেন্স, জশ হাচারসন, লিয়াম হেমসওয়ার্থকে নিয়ে এবার আসছে ‘দি হাঙ্গার গেইমস: ক্যাচিং ফায়ার’।

হলিউডে থ্যাংকস গিভিং-এর সময়টিকে বক্স অফিসের জন্য বিশেষ একটি সময় হিসেবে দেখা হয়; এতদিন নভেম্বরের শেষের ওই সময়টি ছিলো ‘টোয়াইলাইট’ সিরিজের দখলে। এবার সে সমস্যা আর নেই; আর তাই থ্যাংকস গিভিং-এর ঠিক আগেই মুক্তি পেতে যাচ্ছে ‘দি হাঙ্গার গেইমস: ক্যাচিং ফায়ার’।

আর তাই, নভেম্বরের ২২ তারিখে মুক্তি পেতে যাওয়া ‘দি হাঙ্গার গেইমস: ক্যাচিং ফায়ার’ যে হতে যাচ্ছে থ্যাংকস গিভিং-এর ছুটিতে সিনেমাপ্রেমিদের প্রথম পছন্দ- সে ব্যাপারে সন্দেহ নেই কারো।

 

স্টার ট্রেক: ইনটু দ্যা ডার্কনেস  

জে জে আব্রাহামসের ২০০৯ সালে নির্মিত ‘স্টার ট্রেক’ সিনেমাটি এটির মূল সিরিজের ভক্তদের তো বটেই, নজর কেড়েছিল যারা সিরিজটি এর আগে দেখেননি এমন অনেক দর্শকেরও। তারই ফলশ্রুতিতে এবার আসছে ‘স্টার ট্রেক ইনটু দ্যা ডার্কনেস’। টিভি সিরিজ ‘শার্লক’ খ্যাত অভিনেতা বেনেডিক্ট কিউম্বারব্যাচ রয়েছেন বাড়তি আকর্ষণ হিসেবে, সেই সঙ্গে আছে নতুন ভিলেন এবং কাহিনীতে নতুন মোড়।

হলিউড বিশারদদের মতে, সব মিলিয়ে ‘স্টার ট্রেক ইনটু দ্যা ডার্কনেস’ হতে যাচ্ছে গত পর্বটির মতই টানটান উত্তেজনা এবং বিনোদনে ভরপুর। সিনেমাটি মুক্তি পাবে ১৭ মে।

 

ম্যান অফ স্টিল
 
একটি ভিনগ্রহের শিশুর পৃথিবীতে বেড়ে ওঠে এবং তার অতিমানবিক ক্ষমতা দিয়ে পৃথিবীকে রক্ষা করা- এই কাহিনী অনেকের কাছেই পরিচিত শোনাতে পারে, ‘ম্যান অফ স্টিল’ সেই সুপারহিরো ‘সুপারম্যান’এরই নতুন সংস্করণ। ‘ডিসি কমিকস’এর সর্বকালের সেরা এই হিরোকে আবারও রূপালি পর্দায় দেখা যাবে সম্পূর্ণ নতুনভাবে; বলা যেতে পারে আরও স্টাইলিশ এবং আধুনিক রূপে।

‘ব্যাটমান’ সিরিজের কাজ শেষে পরিচালক ক্রিস্টোফার নোলান ‘ম্যান অফ স্টিল’ এর চিত্রনাট্য রচনায় বিশেষভাবে সহযোগিতা করেছেন। এর পরিচালনায় ছিলেন ‘ওয়াচমেন’ খ্যাত পরিচালক জ্যাক স্নাইডার। রাসেল ক্রো, অ্যামি অ্যাডামস এবং কেভিন কস্টনারের মত কলাকুশলীদের নিয়ে তৈরি ‘ম্যান অফ স্টিল’এ সবচাইতে পুরনো এই সুপারহিরোকে নিয়ে তাই দর্শকদের আগ্রহের কমতি নেই এতোটুকুও। সিনেমাটি মুক্তি পাবে ১৪ জুন।

 

প্যাসিফিক রিম 

সায়েন্স ফিকশন এবং অ্যাকশন সিনেমার ভক্তদের জন্য ‘প্যাসিফিক রিম’ নিয়ে আসছে সুখবর। বিশালাকার রোবটের লড়াই যারা ইতোমধ্যেই দেখেছেন তাদের জন্য এবার রয়েছে রোবটের প্রতিদ্ব›দ্বী দৈত্যাকার সব এলিয়েন মনস্টার। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে উঠে এসে পৃথিবীতে আক্রমণ করে এলিয়েন মনস্টাররা এবং বিশালাকার রোবটগুলোকে চালিয়ে পৃথিবীকে বাঁচাতে এগিয়ে আসে মানুষ। ‘হেলবয়’ খ্যাত পরিচালক গুইলেরমো দেল তরো বিনোদনপিয়াসী দর্শকদের জন্য এবার নিয়ে এসেছেন এমনই এক উত্তেজনায় ভরপুর সায়েন্স ফিকশন ‘প্যাসিফিক রিম’। আসছে জুলাইয়ের ১২ তারিখে মুক্তি পেতে যাওয়া সিনেমাটির ট্রেইলার ইতোমধ্যেই নজর কেড়েছে অনেক দর্শকের।

 

ফাস্ট অ্যান্ড দ্যা ফিউরিয়াস-সিক্স

অবশেষে ষষ্ঠ পর্ব নিয়ে আবারও হাজির হচ্ছে ‘ফাস্ট অ্যান্ড ফিউরিয়াস সিরিজ’। তবে কি থাকছে এবারের পর্বে? এ বিষয়ে কারও আগ্রহ না থাকলেও একটি বিষয়ে সবাই নিশ্চিত যে বরাবরের মত ভ্যান ডিজেল, ডিয়ানে রক জনসন, টাইরিস গিবসন এবং পল ওয়াকার আবারও একসঙ্গে হচ্ছেন। সেইসঙ্গে থাকছে গতি এবং টানটান উত্তেজনায় ভরপুর ‘কার ক্র্যাশ’। ফাস্ট সিরিজের এবারের পর্বটির সম্পূর্ণ শুটিং হয়েছে ইংল্যান্ডে; অর্থাৎ ব্রিটিশদের রাস্তায় এলোপাথাড়ি গাড়ি ছুটাবেন এবারের ‘ফাস্ট অ্যান্ড দ্যা ফিউরিয়াস’এর তারকারা। নতুন আকর্ষণের মধ্যে রয়েছে সাবেক ‘মিক্সড মার্শাল আর্ট’ তারকা জিনা কারানোর গ্ল্যামারাস উপস্থিতি। সিনেমাটি উপভোগ করার জন্যও ভক্তদের অপেক্ষা করতে হবে মে মাসের ২৪ তারিখ পর্যন্ত।

 

দ্যা হবিট: দ্যা ডিসোলেশন অফ স্মাগ

২০১২ এর শেষে মুক্তি পাওয়া এপিক ফ্যান্টাসি ধাঁচের উপন্যাস হতে নির্মিত ‘দ্যা হবিট: দি আনএক্সপেক্টেড জার্নি’ বক্স অফিস মাতাচ্ছে এখনো। এরই মধ্যে মুক্তি পেয়ে গেছে সিনেমাটির দ্বিতীয় পর্ব ‘দ্যা হবিট: দ্যা ডিসোলেশন অফ স্মাগ’ এর ট্রেইলার। সেখানে দেখানো হয়েছে হবিট বিলবো ব্যাগিন্সের অ্যাডভেঞ্চার যাত্রার পরবর্তী ধাপ। বিলবোর বামন বন্ধুরা এবারও থাকছে তার সঙ্গে এবং আরও আসছে বেশ কিছু নতুন চরিত্র এবং কাহিনীতে নতুন মোড়। আসছে বড়দিনের মৌসুমে ডিসেম্বরের ১৩ তারিখে মুক্তি পাবে হবিট সিরিজের ওই পর্বটি।

 

মনস্টারস ইউনিভার্সিটি

প্রত্যেক বছরই অ্যানিমেশন মুভির ভক্তরা হলিউডের কাছ থেকে বিশেষ কিছু আশা করে থাকে। তবে বিগত কয়েক বছরে ‘টয় স্টোরি’এর পর পর দুটি সিক্যুয়াল যেখানে ভক্তদের আশা পূরণ করতে পেরেছে, সেখানে ‘কারস টু’ প্রত্যাশার ধার দিয়েও যেতে সক্ষম হয়নি। অবশেষে হলিউডের সর্ববৃহৎ অ্যানিমেশন প্রোডাকশন ‘পিক্সার’ আবারও প্রস্তুত সেই ঝুঁকিটি নিতে। ২০০১ সালে মুক্তি পাওয়া ‘মনস্টার ইনকর্পোরেটেড’ এর এক যুগ পর এবার আসছে এর সিক্যুয়াল ‘মনস্টারস ইউনিভার্সিটি’।

বিলি ক্রিস্টাল এবং জন গুডম্যানের কণ্ঠে সালি এবং মাইক- যাদের পরিচয় হয়েছিলো একে অপরের প্রতিদ্ব›দ্বী হিসেবে, এবারের পর্বে দেখা যাবে তাদের ভেতরকার গড়ে ওঠা বন্ধুত্বের এক অন্যরকম রূপ। জুনের ২১ তারিখে মুক্তি পাবে ‘মনস্টারস ইউনিভার্সিটি’।

 

দ্যা গ্রেট গ্যাটসবাই

স্কট ফিটজজেরাল্ডের কালজয়ি উপন্যাস ‘দ্যা গ্রেট গ্যাটসবাই’ এর নাম শোনেনি এমন ব্যক্তি খুঁজে পাওয়া ভার। এর আগে যদিও হলিউডের রূপালি পর্দায় এ পর্যন্ত চারবার সিনেমার রূপ পেয়েছে উপন্যাসটি, তবে এবার প্রত্যাশা যেন একটু বেশিই। একে তো ‘মুলা রুজ’ সিনেমার পরিচালক বাজ লারম্যানের পরিচালনা, তার উপর অভিনেতা লিওনার্দো ডি ক্যাপ্রিওর তুখোড় অভিনয়। মুক্তির বহু আগে থেকেই ব্যাপক আলোচিত হবার জন্যও আসলে এই দু’জন ব্যক্তির অবদানই যথেষ্ট।

এছাড়াও রয়েছেন অস্কার মনোনয়ন প্রাপ্ত অভিনেত্রী ক্যারি মুলিগ্যান; তাকে ভাবা হচ্ছে ‘ডেইজি বুচানন’-এর চরিত্রটির জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত। আর এই পুরো প্যাকেজটি দর্শক উপভোগ করবে এবার সম্পূর্ণ থ্রিডিতে। মে মাসের ১০ তারিখে মুক্তির অপেক্ষায় থাকা ‘দ্যা গ্রেট গ্যাটসবাই’ যে, কোন যেনতেন সামার মুভি নয়, তার প্রমাণ তখনই পেয়ে যাবেন সিনেমাপ্রেমীরা।

 

এ গুড ডে টু ডাই হার্ড 

২০১৩ সালকে বলা যেতে পারে অ্যাকশন মুভির বছর; কারণ বাকি অ্যাকশন তারকাদের মত ‘ডাই হার্ড’ সিরিজের পঞ্চম পর্ব নিয়ে অভিনেতা ব্রুস উইলিস এবার ফিরে আসছেন তার চিরাচরিত ‘অ্যাকশন হিরো’ রূপে। জন মুরের পরিচালনায় ‘ডাই হার্ড’ সিরিজের বাকি সিনেমাগুলোর মত এবারও অ্যাকশন ভক্তদের আগ্রহের কেন্দ্রবিন্দুতে অবস্থান করছে ‘এ গুড ডে টু ডাই হার্ড’। সিনেমাটি মুক্তি পেতে যাচ্ছে ফেব্রুয়ারির ১৪ তারিখ।

এবছর হলিউডের ‘মোস্ট অ্যান্টিসিপেটেড’ মুভির তালিকা আসলে অনেকটাই দীর্ঘ। এর মধ্যে যদিও অ্যাকশন এবং সিক্যুয়ালের রাজত্বই চোখে পড়ে, তবে এসবের মাঝেও সারা বছর ধরে চলবে হরর, অ্যানিমেশন, সায়েন্স ফিকশন এবং সেই সঙ্গে রোমান্টিক কমেডিও। হরর মুভির তালিকায় রয়েছে বেশ কিছু বিখ্যাত হরর রিমেক, যার মধ্যে ‘টেক্সাস চেইনস থ্রি ডি’, ‘ফ্রাঙ্কেনস্টাইন’, ‘ড্রাকুলা থ্রি ডি’, এবং  লেখক স্টিফেন কিং-এর বিখ্যাত সিনেমা ‘ক্যারি’ বিশেষভাবে উল্লেখযোগ্য। এছাড়াও আসছে ‘স্কেরি মুভি ফাইভ’; যেখানে অভিনয় করেছেন অভিনেত্রী লিন্ডসে লোহান, সেই সঙ্গে ২০০৭ সালে ব্যাপক গ্রহণযোগ্যতা পাবার পর এবার সিক্যুয়াল নিয়ে ফিরে আসছে ‘দ্যা হান্টিং ইন কানেক্টিকাট টু’।

অ্যানিমেশন সিনেমার মধ্যে ‘ডেসপিকবল মি টু’, ‘দ্যা স্মারফস টু’ এবং ‘দ্যা লিটল মারমেইড’ উল্লেখযোগ্য। আবার ‘টোয়াইলাইট’ ভক্তদের নিরাশ না করার জন্য আসছে নতুন হরর রোমান্স ‘দ্যা হোস্ট’।

এদিকে অভিনেতাদের দিক থেকে বিচার করতে গেলে দেখা যাবে আবারও ফিরে আসছেন সব অ্যাকশন হিরোরা। একদিকে যেমন আর্নল্ড শোয়ার্জনেগার ‘দ্যা লাস্ট স্ট্যান্ড’ এবং সিলভেস্টার স্টালন ‘বুলেট টু দ্যা হেড’ নিয়ে আসছেন, অপরদিকে ‘দ্যা টম্ব’ সিনেমায় একই সঙ্গে মারাত্মক অ্যাকশন করতে দেখা যাবে এই দুই তারকাকে।

এছাড়াও অভিনেতা ব্র্যাডলি কুপার তার ‘হ্যাঙ্গওভার’ গ্রুপ নিয়ে আবারও ফিরছেন ‘হ্যাঙ্গওভার পার্ট থ্রি’এর মধ্য দিয়ে। সেই সঙ্গে অস্কারজয়ী অভিনেত্রী স্যান্ড্রা বুলককে দেখা যাবে অ্যাকশন এবং ক্রাইম ধাঁচের ‘দ্যা হিট’ সিনেমায়।

এদিকে ব্র্যাড পিট ফিরছেন তার অভিনীত ‘ওয়ার্ল্ড ওয়ার জি’ নিয়ে; ২১ জুন মুক্তির অপেক্ষায় থাকা সিনেমাটিতে তাকে দেখা যাবে জম্বিদের সঙ্গে যুদ্ধ করতে। টম ক্রুজকে দেখা যাবে ‘অবলিভিয়ন’-এ; পৃথিবী ধ্বংস হয়ে যাওয়ার পরের অবস্থা নিয়ে নির্মিত হয়েছে সিনেমাটি। একই ধরনের আরেকটি সিনেমায় দেখা যাবে উইল স্মিথকে; ‘আফটার আর্থ’ নামের ওই সিনেমায় তার সঙ্গে অভিনয় করবেন তার ছেলে জাডেন স্মিথও।

সব মিলিয়ে বলা যেতে পারে ২০১২ এর মতোই, কিংবা তার চেয়েও বেশি ব্যবসায়িক একটি সময় চলতি বছরে আবারো দেখতে যাচ্ছে হলিউড; দর্শকদের জন্যও তাই বছরটি কাটবে হরেক রকমের মসলাদার সব সিনেমার ভরপুর বিনোদনে।