ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Wednesday, 05 March 2014 14:24

চলচ্চিত্রের অশ্লীলতা ও জালিয়াতি বন্ধে কাজ শুরু করছে টাস্কফোর্স

Rate this item
(0 votes)

অশ্লীল চলচ্চিত্র নির্মাণ, প্রদর্শন এবং অবৈধ ভিডিও জালিয়াতি বন্ধে তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক গঠিত টাস্কফোর্স দু'একদিনের মধ্যে কাজ শুরু করবে। রোববার এফডিসিতে এক সংবাদ সম্মেলনে এ খবর জানান এফডিসিরি ব্যবস্থাপনা পরিচালক। সম্মেলনে বক্তারা টাস্কফোর্সের সাফল্যের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

টাস্কফোর্সের আহ্বায়ক হচ্ছেন র‌্যাব ফোর্সেস সদর দপ্তরের উপ-পরিচালক ইন্টেলিজেন্স উইং মেজর হামিদ আবদুল ওয়াদুদ। সদস্য ৫ জন হলেন : র‌্যাবের সহকারী

পরিচালক ক্যাপ্টেন মো. আশিক ইবনে আনোয়ার, তথ্য মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব (চলচ্চিত্র) মোস্তফা কামাল, চলচ্চিত্র প্রযোজক পরিবেশক সমিতির প্রতিনিধি কাজী হায়াৎ, চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের সচিব টাইগার জামিল এবং এফডিসি'র সহকারী পরিচালক (নিরাপত্তা) রেজাউল হক।

এফডিসি'র ব্যবস্থাপনা পরিচালক বদরুল আমিন টাস্কফোর্স গঠনের প্রয়োজনীয়তা উল্লেখ করে জানান, " গত কয়েক বছর ধরে অশ্লীল চলচ্চিত্র নির্মাণ ও প্রদর্শন চলচ্চিত্র শিল্পকে ধ্বংস করার পাশাপাশি সমাজের জন্যও ক্ষতিকর হয়ে দাঁড়িয়ে গিয়েছিল। পাশাপাশি অবৈধ ভিডিও পাইরেসি প্রযোজকদের সর্বস্বান্ত করে চলচ্চিত্র শিল্পকে ধ্বংস করে দিচ্ছিল। ভিডিও পাইরেসি বন্ধে কপিরাইট আইনের সঠিক বাস্তবায়ন না হওয়ার কারণে এসব বন্ধে টাস্কফোর্স গঠন অতি জরুরি হয়ে দাঁড়িয়েছিল। সরকার টাস্কফোর্স গঠন করেছে। আমাদের বিশ্বাস, ১ মাসের মধ্যে আমরা ভাল ফলাফল দেখতে পাব। "

তিনি আরও বলেন, "এখন থেকে অভিযোগ পাওয়া মাত্রই অশ্লীল চলচ্চিত্র নির্মাণ ও প্রদর্শন স্থান থেকে শুরু করে পোস্টার নির্মাণ ও সংরক্ষণের স্থানে, অবৈধ ভিডিও নির্মাণ ও বিক্রয় কেন্দ্রে টাস্কফোর্স অভিযান চালাবে। অভিযুক্তদের ধরে আইনের কাছে সোপর্দ করবে।"

র‌্যাবের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কর্নেল গুলজার উদ্দিন আহমেদ বলেন, "আমরা আশাবাদী অচিরেই অশ্লীল চলচ্চিত্র নির্মাণ, প্রদর্শন এবং ভিডিও পাইরেসি বন্ধ করতে পারব।"

চলচ্চিত্র সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান কামরুন্নাহার বলেন, " বর্তমান সেন্সর বোর্ড সংবাদ মাধ্যমের সহযোগিতায় অশ্লীলতা অনেকটা বন্ধ করতে সমর্থ হয়েছে। সেন্সর বোর্ড অশ্লীল চলচ্চিত্র নির্মাণ বন্ধে বদ্ধপরিকর। টাস্কফোর্স গঠিত হওয়ায় আমরা বেশ আশাবাদী।"

টাস্কফোর্স সদস্য কাজী হায়াৎ বলেন, " আমি সব চলচ্চিত্র প্রযোজককে অনুরোধ করছি, তারা যেন তাদের ছবিটি কপিরাইট অ্যাক্ট অনুযায়ী নিবন্ধন করে নেন। তাহলে আমাদের কাজ করতে সুবিধা হবে। "

আসন্ন ঈদে মুক্তি প্রতীক্ষিত ছবির প্রযোজক এবং ঢাকার সিনেমা হল মালিকদের সঙ্গে টাস্কফোর্সের বিশেষ সভা ৯ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে। সভায় টাস্কফোর্স তাদের কর্মপরিধি নিয়ে প্রযোজক - প্রদর্শকদের সঙ্গে আলোচনা করবে।

Last modified on Sunday, 09 March 2014 16:12