ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

বিনোদন ডেস্ক

যে কারণে তারকাদের সংসার ভাঙ্গে

 

 

 

প্রিয় তারকার সংসার ভাঙার গল্প শুনতে চান না কোনো ভক্তই। কিন্তু তারপরও ভাঙে সংসার! কিন্তু কেন? জনপ্রিয় অভিনেতা হুমায়ুন ফরিদী ও অভিনেত্রী সুবর্ণা মুস্তাফা জুটিকে দুই প্রান্তের দুই বাসিন্দা হিসেবে কখনো দেখা যাবে ভাবেননি কেউ।

কিন্তু হঠাৎ একদিন পত্রিকার শিরোনাম ফরিদীকে ডিভোর্স দিয়ে নাট্য ব্যক্তিত্ব বদরুল আনাম সৌদকে বিয়ে করেছেন সুবর্ণা। অনেক পাঠক সেদিন এই জুটির ঘর ভাঙ্গার শব্দে দুঃখিত হয়েছিলেন। দুঃখ পাবেনই বা না কেন, তারকা জুটির ঘরভাঙা বলে কথা। কারণ হিসেবে সুবর্ণা বলেছিলেন ডাক্তারের বারণ সত্বেও ফরিদীর অতিরিক্ত মদ্য ও ধুমপান।

ঝগড়ার পরও প্রেমটা থাকুক মিষ্টি

কথায় বলে ঝগড়ায় প্রেম বাড়ে। আসলেই কথাটি সত্যি। কারণ ঝগড়া শেষে দুজনেরই মনের টান বেড়ে যায়। দাম্পত্য জীবন বলুন আর প্রেমিক প্রেমিকার ভালোবাসার সম্পর্ক বলুন, এরকম একটু আধটু মিষ্টি ঝগড়া তো হয়েই থাকে।

তবে অনেক দম্পতি এবং প্রেমিক-প্রেমিকা যুগল রয়েছেন যারা ঝগড়ার পর ইগো সমস্যায় ভোগেন। ঠিকভাবে সব কিছু স্বীকার করে নিয়ে সম্পর্কের মধুরতা আগের মতো ফিরিয়ে আনতে পারেন না। ঝগড়ার পর মিষ্টি প্রেম ধরে রাখতে জেনে নিন কয়েকটি কৌশল:

ভালোবাসার মানুষকে সরি বলুন

যদি আপনি মনে করে থাকেন ঝগড়ার সময় ভুলটি আপনার ছিল তবে সরাসরি সরি বলুন। আপনার সঙ্গী বুঝতে পারবে আপনি মন থেকেই ঝগড়াটির জন্য অপরাধ বোধ করছেন। এতে সস্পর্কে মধুরতা বাড়বে।

সঙ্গীকে খুশি করার চেষ্টা করুন

সঙ্গীর পছন্দের কোনো কিছু করুন। তার জন্য সুন্দর একটি গিফট কিনে আনুন। অথবা আর কিছু না হোক তার পছন্দের ফুল দিয়েই তাকে খুশি করার চেষ্টা করুন। এতে করে আপনার সঙ্গী বুঝতে পারবেন আপনার কাছে আপনার সঙ্গীর গুরুত্ব অনেক বেশি।

ছোট্ট একটি চিরকুট লিখুন

ঝগড়া শেষে কথা বলা বন্ধ? কোনো সমস্যাই নয়। তার জন্য লিখতে পারেন ছোট্ট ছোট্ট চিরকুট। ভালোবাসার কথা, আপনার মনের কথা কিংবা তার প্রতি প্রশংসা সূচক ছোট্ট ছোট্ট বাক্যের কথা মালা সাজিয়ে লিখতে থাকুন ছোট্ট কিছু চিরকুট। আপনার সঙ্গীর মুখে ঠিকই হাসি ফুটবে।

সারপ্রাইজ দিন সঙ্গীকে

ঝগড়ার পরের গুমোট ভাবটি কাটানোর সব চাইতে সহজ এবং কার্যকরী উপায় হচ্ছে সঙ্গীকে সারপ্রাইজ দেয়া। এটি খুব সহজ একটু উপায় সঙ্গীর মুখে হাসি ফুটানোর।

আত্মবিশ্বাসী ও সফল মানুষেরা যে কারণে আলাদা!

একজন আত্মবিশ্বাসী ও সফল মানুষের সাথে আপনার পার্থক্যটা কী? কিংবা আরও সহজ করে বললে, আপনি কেন সফল ও আত্মবিশ্বাসী মানুষদের তালিকায় নিজের নামটা লেখাতে পারছেন না? জবাবটা কিন্তু খুব সোজা। আপনি পারছেন না, কেননা আপনার মাঝে এখনো রয়ে গেছে কিছু কমতি। আত্মবিশ্বাসী মানুষেরা জীবনের সবক্ষেত্রেই ভিন্নতার পরিচয় দিয়ে থাকেন, আর এই ভিন্নতাই তাঁদেরকে করে তোলে জীবনের সবক্ষেত্রে সফল। একজন গৃহিণী কিংবা সাদামাটা মা থেকে বিলিওনিয়ার কিংবা রকেট সায়েন্টিস্ট পর্যন্ত যে কোনো কিছুতেই সফল হতে পারেন একজন আত্মবিশ্বাসী মানুষ। কী চাই? চাই কেবল ভিন্ন দৃষ্টিভঙ্গি।

আসুন, আজ জানা যাক সেই কাজ সম্পর্কে, যেগুলো আত্মবিশ্বাসী মানুষেরা একদম ভিন্নভাবে করে থাকেন। আর এই জন্যই তাঁরা সফল।

১. তারা এমন ভাব মোটেও দেখান না যে পৃথিবীটা তাঁর। বরং এভাবে চলেন যেন পৃথিবীটা কার সেটা নিয়ে তাঁর একদম মাথাব্যথা নেই। তাঁরা কেবল নিজের কাজটার দিকেই মনযোগী হয়ে থাকেন।

২. তাঁরা কখনোই বাহানা তৈরি করেন না, নিজের সাফাইও দেন না। কাজ দিয়ে সকল প্রশ্নের জবাবটা দিয়ে দেন।

৩. তাঁরা আত্মবিশ্বাসী হবার অভিনয় করেন না, বরং আত্মবিশ্বাসকে নিজের ব্যক্তিত্বের অংশ হিসাবে লালন করেন। একটা বিব্রতকর পরিস্থিতিকেও আত্মবিশ্বাস দিয়ে সামলে নিতে পারেন। আর এটাই তাঁদের সাফল্য।

শুরু হলো আন্তর্জাতিক অ্যানিমেশন কার্টুন উৎসব

ঢাকাসহ সাতটি বিভাগে শুরু হলো আন্তর্জাতিক অ্যানিমেশন কার্টুন উৎসব। রবিবার কেন্দ্রীয় গণগ্রন্থাগারে উদ্বোধন হয় এই উৎসবের। দ্বিতীয়বারের মতো এই উৎসবের আয়োজন করেছে ‘চিলড্রেন কমিউনিকেশন বাংলাদেশ’।

উৎসবের উদ্বোধন করেন কার্টুনিস্ট শিশির ভট্টাচার্য্য। উপস্থিত ছিলেন আলী ইমাম, মিরা মিত্র ও সাঈদ মিল্কি। উদ্বোধনের পর প্রদর্শিত হয় একটি কার্টুনচিত্র। ঢাকায় গণগ্রন্থাগার মিলনায়তনে উৎসব চলবে ২৩ এপ্রিল পর্যন্ত। উৎসবে প্রদর্শিত হবে বাংলাদেশসহ ১৮টি দেশের ৭০টি শিশুতোষ অ্যানিমেশন ফিল্ম।

শাকিব খান ছাড়া অভিনয় না করার সিদ্ধান্ত অপু বিশ্বাসের

ঢালিউডের জনপ্রিয় নায়িকা অপু বিশ্বাস। ২০০৬ সালে প্রথমবারের মতো কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেন। এরপর আর থেমে থাকা নয়। ২০১০ সাল পর্যন্ত  প্রতি বছর তার অভিনীত ছবি মুক্তির সংখ্যা ছিল প্রায় দশটি। গত চার বছরে এই সংখ্যা এসে দাঁড়িয়েছে দুটি অথবা তিনটিতে। এবছরে অপু বিশ্বাস অভিনীত ছবির সংখ্যা একটি, তবে মুক্তির মিছিলে রয়েছে আরও কিছু চলচ্চিত্র।

২০০৪ সালে ‘কাল সকালে’ ছবির মাধ্যমে চলচ্চিত্রে পদার্পণ করেন অপু বিশ্বাস। ২০০৬ সালেই কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয় করেন ‘কোটি টাকার কাবিন’ ছবিতে। বিপরীতে ছিলেন শাকিব খান।

এই ছবির মাধ্যমেই বাংলা ছবিতে তৈরী হলো নতুন জুটি। দর্শকরাও পছন্দ করলো শাকিব অপুর ক্যামেস্ট্রি। তাই হয়তো অপু বিশ্বাস অভিনীত ৫০টি ছবির মধ্যে ৪০টিতেই তিনি অভিনয় করেছেন শাকিব খানের বিপরীতে।

ধর্ষণ নিয়ে শ্বশুরের মন্তব্যে লজ্জিত আয়েশা টাকিয়া

মহিলাদের নিয়ে অত্যন্ত কুরুচিকর মন্তব্য করে দেশের সমালোচনার মুখে সমাজবাদী পার্টি নেতা আবু আজমি। দলও তাঁর মন্তব্যে লজ্জিত। এমনকী, লজ্জিত তাঁর পরিবারের সদস্যরাও। টুইটারে শ্বশুরের মন্তব্যের জন্য লজ্জাপ্রকাশ করলেন পুত্রবধূ আয়েষা টাকিয়া।
আয়েষা লিখেছেন, "আমার শ্বশুরের যেই মন্তব্যের কথা পড়ছি তা যদি সত্যি হয়, তবে আমি এবং ফারহান খুবই বিব্রত এবং লজ্জিত। আমরা এরকম মানসিকতা নিয়ে চলি না। এটা মহিলাদের জন্য অসম্মানজনক। ওনার মন্তব্য অত্যন্ত দুঃখজনক।" অন্যদিকে, ধর্ষকদের ফাঁসি হওয় উচিত্ বলে টুইট করেছেন আয়েষার স্বামী ফারহান।

অভিনেতা মিকি রুনি আর নেই

হলিউডের কিংবদন্তি অভিনেতা মিকি রুনি আর নেই। গত রোববার নর্থ হলিউডের নিজ বাড়িতে তিনি মৃত্যুবরণ করেন। এ সময় তার বয়স হয়েছিল ৯৩ বছর। তার মৃত্যুতে হলিউডসহ বিশ্ব চলচ্চিত্রাঙ্গনে চলছে শোকের মাতম। মিকি রুনি ছিলেন হলিউডের সবচেয়ে দীর্ঘ ক্যারিয়ারের অভিনেতা। খুব ছোটবেলা থেকেই শুরু হয় তার অভিনয় জীবন। দীর্ঘ প্রায় ৯০ বছর অভিনয় করে রেকর্ড গড়েছেন তিনি। ছোটবেলা থেকে অভিনয় করে কিশোর বেলাতেই সুপারস্টার তকমা পেয়েছিলেন রুনি।

বলিউডের সবচেয়ে দামী ৫ তারকা

বলিউডের অভিনেতা অভিনেত্রীদের মধ্যে সবচেয়ে কার আয় বেশি? এমন প্রশ্ন জানার জন্য হয়তো অনেকের মনের ভেতরই ঝড় উঠবে। শাহরুখ ভক্তদের দাবী হতে পারে শাহরুখই সবচেয়ে বেশি আয় করছেন বলিউড থেকে আর অন্য দিকে হৃতিক রোশনের ভক্ত সমাজ বলবে বলিউডের সব টাকা যাচ্ছে হৃতিকের ঘরেই। তবে সত্যিটা কি? বলিউডের সবচেয়ে দামী অভিনেতা/অভিনেত্রী কে? চলুন দেখে নেই-

১. সালমান খান: তেমন অবাক হওয়ার কিছু না হলেও সালমান খান বর্তমানে বলিউডের সবচেয়ে দামী অভিনেতা হওয়ার মুকুট পরে ১ নম্বরে বসে আছেন। প্রতিটি ছবির জন্য সালমান পরিচালকের কাছ থেকে গুনে গুনে ৬০ কোটি রুপি নিয়ে নেন। তবুও দাবাং খানের কদর একটুও কমেনি, এই হাই ভোল্টেজ রেটিং এই তাকে ছবিতে নেওয়ার জন্য লাইন পড়ে যায় পরিচালকদের।

এবার সালমান-জুহির জুটি

বলিউড অভিনেতা সালমান খান অনেকের সাথে জুটি হয়ে ছবিতে কাজ করলেও জুহি চাওলার সাথে একসাথে কোন ছবিতে কাজ করেননি। সম্প্রতি কফি উইথ করণের শোর এর সময় সালমানের খানের সাথে আগামী বছরের শুরুতে জুটি হয়ে কাজ করতে চেয়েছেন জুহি।

Page 3 of 3