ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

৯ ব্যাংকের আমানত সংগ্রহ ৩৬০০ কোটি টাকা

Rate this item
(0 votes)

নতুন ৯ ব্যাংক সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকার বেশি আমানত সংগ্রহ করেছে। প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার মতো ঋণও বিতরণ করেছে। শহর-গ্রাম মিলে ৮৭টি শাখাও খুলেছে ব্যাংকগুলো।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, ২০১৩ সালের এপ্রিল থেকে চলতি বছরের ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বেসরকারি ৬টি ও প্রবাসীদের ৩টি ব্যাংক মিলে ৩ হাজার ৬৫৫ কোটি টাকা আমানত সংগ্রহ করেছে।
এর মধ্যে ইউনিয়ন ব্যাংক ৮৫০ কোটি ৪৭ লাখ টাকা, ফারমার্স ব্যাংক ২০৭ কোটি ৭০ লাখ টাকা, মধুমতি ব্যাংক ২০৬ কোটি ৫২ লাখ টাকা, মিডল্যান্ড ব্যাংক ৩৫৩ কোটি ২৪ লাখ টাকা, মেঘনা ব্যাংক ৩১১ কোটি ৫৮ লাখ টাকা, সাউথ-বাংলা অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক ৬৩৯ কোটি ৮৬ লাখ টাকা, এনআরবি ব্যাংক ২৫৬ কোটি ৮২ লাখ টাকা, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক ৬৯৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকা এবং এনআরবি গ্লোবাল ১৩২ কোটি ১৫ লাখ টাকা আমানত সংগ্রহ করেছে।
ব্যাংকগুলো ঋণ দিয়েছে ২ হাজার কোটি টাকার মতো। গত ২০ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ব্যাংকগুলোর বিতরণ করা ঋণ ও সংগৃহীত আমানতের অনুপাতের (এডিআর) গড় দাঁড়িয়েছে ৫৪ শতাংশ।
এর মধ্যে ইউনিয়ন ব্যাংকের এডিআর ৭২.৮৩ শতাংশ, ফারমার্স ব্যাংকের এডিআর ২৩.৪৬ শতাংশ, মধুমতি ব্যাংকের এডিআর ১৫ শতাংশ, মিডল্যান্ড ব্যাংকের এডিআর ৬৪.০২ শতাংশ, মেঘনা ব্যাংকের ৬৫.৬৫ শতাংশ, সাউথ-বাংলা অ্যাগ্রিকালচার ব্যাংকের ৬৫.৩৬ শতাংশ, এনআরবি ব্যাংকের ২৪.১০ শতাংশ, এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংকের ৭৩.৯৬ শতাংশ এবং এনআরবি গ্লোবালের এডিআর ৮৩.৭২ শতাংশ।
জানা গেছে, গত মার্চ পর্যন্ত ব্যাংকগুলো মোট ৮৭টি শাখা খুলেছে। এর মধ্যে এনআরবি কমার্শিয়াল ব্যাংক ১২টি, এনআরবি ব্যাংক ৬টি, এনআরবি গ্লোবাল ৩টি, ইউনিয়ন ব্যাংক ১৭টি, সাউথ-বাংলা অ্যাগ্রিকালচার ব্যাংক ১৩টি, ফারমার্স ব্যাংক ১২টি, মিডল্যান্ড ব্যাংক ১২টি এবং মধুমতি ও মেঘনা ব্যাংক ৬টি করে শাখা খুলেছে।
এ প্রসঙ্গে মধুমতি ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিজানুর রহমান বলেন, এত প্রতিযোগিতার মধ্যে নতুন ব্যাংক টিকে থাকতে হলে সেবা দিয়েই টিকে থাকতে হবে। আর সে জন্য আমরা চেষ্টা করছি সেবার মান বাড়াতে।