ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

পোশাক খাতে আয় বাড়লেও অর্ডার কমেছে

Rate this item
(0 votes)

বাংলাদেশের তৈরি পোশাক শিল্পখাতে রপ্তানি আয় এক বছরে ২০ শতাংশ বাড়লেও গত দুই মাসে পোশাক সরবরাহের আদেশ কমে গেছে।

শনিবার কারওয়ান বাজারে বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় এ তথ্য তুলে ধরেন সংগঠনের সভাপতি সফিউল ইসলাম মহিউদ্দিন।

তার দাবি, বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধা পাওয়ায় ক্রেতারা প্রতিবেশী কয়েকটি দেশে ঝুঁকছে।

সফিউল বলেন, ২০ শতাংশ রপ্তানি আয় বাড়লেও মজুরি ও ব্যাংক ঋণের সুদ বৃদ্ধিসহ কয়েকটি কারণে তাদের ব্যয় বেড়েছে ২৩ শতাংশ। এতে তাদের মুনাফার পরিমাণ কমেছে ৩১ দশমিক ৫৬ শতাংশ।

"এ অবস্থায় বাংলাদেশের রপ্তানিমুখী পোশাক শিল্প আবারো সঙ্কটে পড়তে যাচ্ছে বলে আমরা আশঙ্কা করছি", বলেন তিনি।

বিজিএমইএ সভাপতি বলেন, এ সঙ্কট উত্তরণে স্বল্পতম সময়ের মধ্যে বিদ্যুৎ ও গ্যাস সমস্যার সমাধান, কর্মীদের দক্ষতা বাড়াতে সমন্বিত প্রকল্প নেওয়া এবং আগামী বাজেটে এ খাতের জন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দ রাখতে হবে।

দেশে মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ এবং অর্থনৈতিক ভারসাম্য বজায় রাখতে রপ্তানিমুখী ও শ্রমঘন শিল্পকে অগ্রাধিকার দেওয়া এবং আগামী বাজেটে পোশাক শিল্পকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

বিদ্যুৎ ও গ্যাসের সঙ্কট সমাধানের দাবি জানিয়ে সফিউল বলেন, "বিদ্যুৎ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে সরকার ইতোমধ্যেই বেশ কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে, যা এ সঙ্কট কিছুটা দূর করবে। বিজিএমইএ-ও এক হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ কেন্দ্র স্থাপনের অনুমোদন চেয়েছে। এর অনুমোদন পেলে বিদ্যুৎ সঙ্কট নিরসনে এ খাতও গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারবে।"

তবে গ্যাস খাতের উন্নয়নে সরকারের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত তেমন কোনো উদ্যোগ চোখে পড়ছে না বিজিএমইএ'র। সংগঠনের সভাপতি বলেন, "যা নেওয়া হয়েছে, তা অত্যন্ত নগণ্য।