ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Saturday, 02 August 2014 12:18

কারিগরকে হত্যা করে স্বর্ণালঙ্কার ডাকাতি Featured

Rate this item
(0 votes)

রাজধানীর পুরান ঢাকার ইসলামপুরে একটি স্বর্ণালঙ্কার কারখানার কারিগর বাদল মালাকারকে (৩২) হত্যা করে স্বর্ণালঙ্কার লুট করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা।

শুক্রবার বিকেলে ৫৫ নম্বর হাজ্বী রহমত উল্লাহ মার্কেটের ৫ম তলার স্বর্ণালঙ্কার তৈরীর কারখানা থেকে তার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ মর্গে পাঠায় পুলিশ। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহভাজন দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারে অভিযান চালানো হচ্ছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।  

পুলিশ জানায়, বাদলের মুখে, মাথায় ও বুকে আঘাতের চিহ্ন এবং নাক থেকে রক্ত বের হচ্ছিল।

ধারণা করা হচ্ছে, তাকে শারীরিক নির্যাতনের পর শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। 

বাদল মালাকারের মামা বিমল চন্দ্র মালাকার জানান, বাদল মালাকার ১৫ বছর ধরে কারখানাটিতে স্বর্ণালঙ্কার তৈরী করছিল। কারখানাটি ভেনাস, আপন ও আমিন জুয়েলার্সসহ বিভিন্ন নামীদামি জুয়েলার্সের স্বর্ণালঙ্কার তৈরী করে। 

 

তিনি আরও জানান, এ ঘটনায় বাদল মালাকারের পিতা সীধাম মালাকার বাদী হয়ে অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। মামলায় স্বর্ণ ও স্বর্ণালঙ্কারসহ প্রায় ১০ ভরি ওজনের স্বর্ণ ও একলাখ টাকা খোয়া গেছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। 

 

কোতোয়ালী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) কবিরুল ইসলাম জানান, কারখানাটির মালিক সুবল পোদ্দার ও মার্কেটের এক নিরাপত্তা কর্মীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। তাদের দেয়া তথ্যমতে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই কারাখানায় সঞ্জয় ও তার এক সহযোগী সেখানে যায়। বাদল তাদের পাঁচতলায় নিয়ে যান। এরপরই রাতের কোন এক সময় হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটে। 

 

ধারণা করা হচ্ছে, নগদ টাকা ও স্বর্ণ এবং স্বর্ণালঙ্কারের লোভে হত্যাকান্ডের ঘটনাটি ঘটতে পারে। হত্যাকাণ্ডের পিছনে পূর্ব শত্রুতা আছে কি না সে বিষয়টি নিশ্চিত নয়। এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে। সন্দেহভাজনদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

 

জানা গেছে, বাদল মালাকারের পিতার নাম সীধাম মালাকার। বাড়ি ঢাকা জেলার সাভার থানাধীন হেমায়েতপুরের হরিণধরা গ্রামে। বাদল মালাকার ২ ভাই এক বোনের মধ্যে সবার বড় ছিলেন।