ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Saturday, 26 July 2014 23:02

‘সংলাপে সাড়া না দিলে যুদ্ধের পদধ্বনি’

আগামী নির্বাচন নিয়ে বিএনপির সঙ্গে সংলাপের আহ্বানে সাড়া না দিলে দেশে তুমুল যুদ্ধের পদধ্বনি শোনা যাবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন দলটির কেন্দ্রীয় দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট রুহুল কবির রিজভী আহমেদ।

শনিবার দুপুরে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ হঁশিয়ারি দেন তিনি।

গার্ল সামিটে অংশ নিতে বৃটেন সফরের সময় লন্ডনে ‘বিবিসি বাংলা’কে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে আগামী নির্বাচন নিয়ে বিএনপির সঙ্গে আলোচনার সম্ভাবনা নাকচ করে দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘গত ৫ জানুয়ারির দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ না নিয়ে বিএনপি যে ‘রাজনৈতিক ভুল’ করেছে, তার মাসুল তাদেরই দিতে হবে।  তাই বিএনপির সঙ্গে আলোচনার প্রসঙ্গ কেন বার বার আসছে, সেটা আমার বোধগম্য নয়।’

 

বিবিসি বাংলাকে দেয়া প্রধানমন্ত্রীর ওই বক্তব্যের সমালোচনা করে রিজভী আহমেদ বলেন, ‘তার (প্রধানমন্ত্রী) বোধগম্য না হওয়ারই কথা। কারণ, জনগণের সমর্থন ছাড়া বিদেশি শক্তির সাহায্যে খয়রাতির ক্ষমতা নাগালে পেয়ে প্রধানমন্ত্রী বেহেশত পেয়ে গেছেন বলে মনে করছেন। সুতরাং তার কাছে বিরোধী দল বা গণতন্ত্র কী, তাতে কিছু আসে-যায় না।’

 

রিজভী বলেন, ‘আগামী নির্বাচন নিয়ে বিএনপির সঙ্গে আলোচনার আহ্বানে সাড়া না দিলে দেশে তুমুল যুদ্ধের পদধ্বনি শোনা যাবে। আর সেই ভয়ঙ্কর পরিস্থিতির জন্য বর্তমান শাসকগোষ্ঠীই দায়ী থাকবে।’

 

শনিবার অনুষ্ঠিত প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনের একটি বক্তব্যের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘আওয়ামী লীগ একটি ফ্যাসিবাদী দল। কারণ, গণতন্ত্রে আলোচনা ও বিতর্কের বিশেষ জায়গা আছে। অথছ আওয়ামী লীগ তা কখনো মানতে চায়নি।’

 

তিনি দাবি করে বলেন, ‘বিএনপি মনে করে, বৈচিত্র্যময় ঐক্যের মধ্যে গণতন্ত্রের মূলশক্তি নিহিত থাকে। চলমান রাজনৈতিক, সামজিক ও অর্থনৈতিক বিষয়গুলোতে জাতীয় ঐকমত্যে গণতন্ত্রের বুনিয়াদ গড়ে ওঠে। সেজন্য ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বাতিল করে সকলের অংশগ্রহণমূলক একটি নির্বাচন দাবিতে বিএনপি সংলাপের আহ্বান জানিয়ে আসছে।’

 

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন- বিএনপির শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক খায়রুল কবির খোকন, সহ-দফতর সম্পাদক আবদুল লতিফ জনি, আসাদুল করিম শাহীন, যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ প্রমুখ।