ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Saturday, 24 May 2014 15:28

হাসিনাকে জবাবদিহি করতে হবে : খালেদা জিয়া Featured

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বলেছেন, দেশের মানুষকে গুম খুন ও অত্যাচার নির্যাতনের জন্য শেখ হাসিনাকে জবাবদিহি করতে হবে। আইনের আওতায় আসতে হবে। সরকারকে সতর্ক করে দিয়ে তিনি বলেন, বেশি বাড়াবাড়ি ভাল না। এই দিন দিন না। সামনে আরও দিন আছে। তখন জবাবদিহি করতে হবে। দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে আইনজীবী সমাবেশে তিনি এসব কথা বলেন। হাইকোর্টে সকালে এ সমাবেশ হওয়ার কথা ছিল। পুলিশ বাধায় এ সমাবেশ পন্ড হয়ে যাওয়ার পর আইনজীবীরা প্রেস ক্লাবে এ সমাবেশ করেন। এতে বিএনপিপন্থি আইনজীবী ও দলের নেতারা অংশ নেন।

খালেদা জিয়া বলেন, এভাবে বেশিদিন চলবে না। সরকারের পায়ের নিচ থেকে মাটি সরে গেছে। ভয়ে আজকে কোন সমাবেশ করতে দিচ্ছে না তারা।

এর আগে আরেকটি সমাবেশে গুম-খুনের শিকার পরিবারের মানুষ জড়ো হয়েছিল তাদের দুঃখের কথা বলার জন্য। তার আগেই গেটে তালা মেরে দেয় পুলিশ। বৈধ অনুমতি থাকার পরও সমাবেশ করতে দেয় না। কোথাও কোন মিটিং করতে দেয় না। এরা এতো দুর্বল যে এরা মানুষকে সবচেয়ে বেশি ভয় পায়। এজন্য কোন সভা সমাবেশ করতে দেয় না। শুধুমাত্র ক্ষমতায় ঠিকে আছে পুলিশের বন্দুকের জোরে। যে র‌্যাব দিয়ে গুম-খুন করানো হচ্ছে তাদের নিয়ে।

এই অবস্থা বেশি দিন চলতে পারে না। পারবে না।

আমরা কোন আন্দোলন করছি না। শুধু শান্তিপূর্ণ সমাবেশ করছি। কিন্তু তাদের কি অবস্থা। এতো টাকা পয়সা কামিয়েছেন যে এখন নিজেরা নিজেরা খুনোখুনি। যতোদিন অবৈধভাবে ক্ষমতা ধরে রাখবেন ততোদিন এমন অবস্থা চলবে। অতি বেশি বাড়াবাড়ি ভাল না। নারায়ণগঞ্জের ঘটনায় এখন পর্যন্ত অপরাধীদের ধরা হয়নি। যাদের ধরা হয়েছে তাদেরকে রিমান্ডের নামে জামাই আদরে রাখা হয়েছে। কারণ তাদের চাপ দিলে তারা সব সত্য কথা বলে দেবে। উপর থেকে হুকুম দিয়ে যে কাজ করা হয়েছে তা প্রকাশ হয়ে যাবে। এই দিন দিন না আরও দিন আছে। সামনের দিনে প্রতিটি অপকর্মের জবাব কিন্তু দিতে হবে।

আজ গণতন্ত্রের কথা বলা হয়। যেখানে মিছিল মিটিং করতে দেয়া দেয়া হয় না। কথা বলতে দেয়া হয় না। কোথায় গণতন্ত্র? আইনের শাসনের কথা বলা হয়। কিন্তু এই শাসন সরকারি দলের জন্য একরকম আর সাধারণ মানুষ ও বিরোধী দলের জন্য অন্যরকম। আওয়ামী লীগের লোকজন অপরাধে ধরা পড়লেও তাদের সাজা হবে না। এভাবে চলতে পারে না। আমরা চাই দেশের উন্নয়ন, সুশাসন। এই কাজগুলো আমরা শুরু করেছিলাম। এখন প্রতিিিট জায়গায় দুর্নীতি। অবৈধ সরকারের অবৈধ মন্ত্রীরা যেসব কথা বলে।

নীতিমালা, আইনের বালাই নেই তাদের কাছে। এটি কি মামার বাড়ি না শ্বশুর বাড়ি। এটি একটি দেশ। এটি জনগণের দেশ। এখানে যা ইচ্ছা করা যাবে না। ওই মন্ত্রীর বিরুদ্ধে অবৈধ সরকার কি ব্যবস্থা নিয়েছে? নিতে পারছে না। কারণ তাদের পদে পদে দুর্বলতা। তাই কারও বিরুদ্ধে কোন কথা বলার সাহস নেই। আওয়ামী লীগের জন্য র‌্যাব গঠন করা হয়েছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমরা র‌্যাবকে রাজনৈতিকভাবে ব্যবহার করিনি। এখন এই র‌্যাবকে গুম-খুনে ব্যবহার হচ্ছে। এখন দেশে শুধু লাশ আর লাশ। এসবের জন্য হাসিনাকে জবাবদিহি করতে হবে।

তিনি বলেন, এখনও সময় আছে দেশের উন্নয়ন ও শান্তির পথে ফিরে আসার জন্য আহবান জানাচ্ছি। আমরা আইনের শাসন, সুশাসন, মানবাধিকার ও শান্তিতে বিশ্বাস করি। এই সরকার বিদায় না দিলে এদেশে কখনও গণতন্ত্র ও আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা হবে না। প্রতিটি মানুষ অতিষ্ট। তারা সরকারের বিদায় চায়। সত্যিকারের নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন চায়।