ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Wednesday, 17 September 2014 11:43

ফাঁসি রায় রহিত, আমৃত্যু কারাদণ্ড সাঈদীর Featured

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াতে ইসলামীর নায়েবে আমির দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীকে আমৃত্যু কারাদণ্ড দিয়েছে আপিল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বাধীন পাঁচ বিচারপতির বেঞ্চ এই রায় ঘোষণা করেন।

আসামিপক্ষ ও রাষ্ট্রপক্ষের দুটি আপিল আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তারা এই রায় দেন। 

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে গত বছরের ২৮ ফেব্রুয়ারি সাঈদীকে মৃত্যুদণ্ডাদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১।

সাঈদীর বিরুদ্ধে গঠন করা অভিযোগে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে তিন হাজারেরও বেশি নিরস্ত্র ব্যক্তিকে হত্যা বা হত্যায় সহযোগিতা, ধর্ষণ, লুটপাট, ভাঙচুর এবং ১শ’ থেকে ১৫০ জন হিন্দু ধর্মাবলম্বীকে জোরপূর্বক ধর্মান্তরে বাধ্য করার মতো ২০টি ঘটনার অভিযোগ আনা হয়েছিল।

 

আজ বুধবার আপিলের রায়ে সাঈদীর বিরুদ্ধে থাকা ১০, ১৬ ও ১৯ নম্বর অভিযোগে আমৃত্যু কারাদণ্ডের রায় দিয়েছেন বেঞ্চ। ৮ নম্বর অভিযোগে ১২ বছরের কারাদণ্ড ও ৭ নম্বর অভিযোগে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

 

৬, ১১ ও ১৪ নম্বর অভিযোগে তাকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। ৮ নম্বর অভিযোগের আংশিক অভিযোগ থেকেও তাকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে। এই অভিযোগের বাকি অংশের জন্য তাকে ১২ বছর কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

 

উল্লেখ্য অভিযোগ-১০ এ বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ২ জুন সকাল ১০টার দিকে সাঈদীর নেতৃত্বে তার সশস্ত্র সহযোগীরা ইন্দুরকানি থানার উমেদপুর গ্রামের হিন্দুপাড়ার হানা দিয়ে ২৫টি ঘরে আগুন ধরিয়ে দেয়। সাঈদীর ইন্ধনে তার সহযোগীরা বিসা বালিকে নারকেল গাছের সঙ্গে বেঁধে গুলি করে হত্যা করে।

 

অভিযোগ-১৬ এ বলা হয়েছে সাঈদীর নেতৃত্বে ১০-১২ জনের রাজাকার দল পারেরহাট বন্দরের গৌরাঙ্গ সাহার বাড়ি থেকে তার তিন বোন মহামায়া, অন্ন রানী ও কমলা রানীকে ধরে পাকিস্তানি সেনা ক্যাম্পে নিয়ে যায়। সেখানে তিন দিন ধরে ধর্ষণ করে পরে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

 

অভিযোগ-১৯ এ বলা হয়েছে সাঈদী প্রভাব খাটিয়ে পারেরহাটসহ অন্য গ্রামের ১০০-১৫০ জন হিন্দুকে ইসলাম ধর্মে রূপান্তর করে। তাদের মসজিদে গিয়ে নামাজ পড়তে বাধ্য করা হতো।

 

৮ নম্বর অভিযোগে বলা হয়েছে, ১৯৭১ সালের ৮ মে বেলা ৩টায় সাঈদীর নেতৃত্বে তার অনুসারীরা পাকিস্তানি বাহিনীর সহায়তায় সদর থানার চিতলিয়া গ্রামের মানিক পসারির বাড়িতে হানা দিয়ে তার ভাই মফিজ উদ্দিন এবং ইব্রাহিমসহ দুই ব্যক্তিকে ধরে নিয়ে যান। সেখানে পাঁচটি বাড়িতে কেরোসিন ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। সেনা ক্যাম্পে ফেরার পথে সাঈদীর প্ররোচণায় ইব্রাহিমকে হত্যা করে লাশ ব্রিজের কাছে ফেলে দেয়া হয়। মফিজকে ক্যাম্পে নিয়ে নির্যাতন করা হয়। পরে সাঈদী ও অন্যদের লাগানো আগুনে পারেরহাট বন্দরে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়। এ ঘটনায় সাঈদী সরাসরি অপহরণ, খুন, যন্ত্রণা দেওয়ার মতো মানবতাবিরোধী অপরাধে যুক্ত ছিলেন।

 

অভিযোগ-৭ এ বলা হয়, ৮ মে বেলা দেড়টায় সাঈদী তার সশস্ত্র সাঙ্গপাঙ্গ ও পাকিস্তানি সেনাবাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে সদর থানার ভাদুরিয়া গ্রামের নুরুল ইসলাম খানের ছেলে মুক্তিযোদ্ধা শহীদুল ইসলাম সেলিমের বাড়িতে হানা দেন। নূরুল ইসলামকে আটক করে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর হাতে তুলে দেন, যারা তাকে নির্যাতন করে। বাড়ি লুটপাট করার পর যাওয়ার অাগে আগুন লাগিয়ে বাড়িটাকে ধ্বংস করে দেওয়া হয়।

 

অভিযোগ-৬ এ বলা হয়েছে, ৭ মে সাঈদীর নেতৃত্বে একদল শান্তি কমিটির সদস্য পিরোজপুর সদরের পারেরহাটে গিয়ে পাকিস্তানি সেনাদের ওই এলাকায় স্বাগত জানান। তাদেরকে পারেরহাট বাজারে নিয়ে এসে সেখানকার আওয়ামী লীগ নেতা, হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন এবং স্বাধীনতার স্বপক্ষের মানুষদের বাড়িঘর ও দোকান-পাট চিনিয়ে দেন সাঈদী। পরে সাঈদী অন্যান্যদের সঙ্গে এ সকল বাড়ি ও দোকানে হানা দিয়ে সম্পদ লুট করে।

 

অভিযোগ-১১ বলা হয়েছে ২ জুন সাঈদীর নেতৃত্বে শান্তি কমিটি ইন্দুরকানি থানার টেংরাখালী গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা মাহাবুবুল আলম হাওলাদারের বাড়িতে পাকিস্তানি সেনাদের নিয়ে যান। সেখানে সাঈদী তার বড় ভাই আবদুল মজিদ হাওলাদারকে ধরে নির্যাতন করেন। এরপর সাঈদী নগদ টাকা, অলঙ্কারাদি ও মূল্যবান জিনিস নিয়ে যান।

 

অভিযোগ-১৪ এ বলা হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের শেষ দিকে সাঈদীর নেতৃত্বে ৫০-৬০ জনের একটি রাজাকার বাহিনী হোগলাবুনিয়ার হিন্দুপাড়ায় মধুসূদন ঘরামীর স্ত্রী শেফালী ঘরামীকে ধর্ষণ করেন। এর ফলে স্বাধীনতার পর তিনি একটি কন্যা সন্তান প্রসব করেন। এ নিয়ে গ্রামে বিভিন্ন কথা ওঠায় শেফালী ঘরামী দেশ ছেড়ে ভারতে চলে যেতে বাধ্য হন। পরে এই হিন্দুপাড়ার ঘরে আগুন দেওয়া হয়।

 

বেঞ্চের অপর চার বিচারপতি হলেন বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা, বিচারপতি মো. আবদুল ওয়াহ্হাব মিঞা, বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী ও বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী। সকাল ১০টায় আদালতে প্রবেশ করেন তারা।

 

আদালতে উপস্থিত ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম, সাঈদীর আইনজীবী, সুপ্রিম কোর্ট বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান ও বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার খন্দকার মাহবুব হোসাইনসহ দুই পক্ষের সব আইনজীবী।