ঢাকা,শুক্রবার, ১৩ মার্চ ২০১৫, ২৯ ফাল্গুন ১৪২১, ২১ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৬

Saturday, 12 April 2014 00:41

ধানমণ্ডি মাঠ খুলে দেওয়ার দাবিতে নাগরিক সমাবেশ

কয়েক বছর আগেও যে মাঠটি শিশুদের পদচারণায় মুখর থাকতো, তা এখন চলে গেছে একটি ক্লাবের দখলে। তাই হাইকোর্টের রায় বাস্তবায়ন করে ধানমন্ডি মাঠ সবার জন্য খুলে দেওয়ার দাবিতে, নাগরিক সমাবেশ করেছে, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন -বাপাসহ পরিবেশবাদী কয়েকটি সংগঠন। অন্যদিকে ক্লাব কর্তৃপক্ষ বলছে, উন্নয়ন কাজ শেষ হলে নির্দিষ্ট সময় পর মাঠটি খুলে দেওয়া হবে।

'ধানমন্ডি খেলার মাঠ রক্ষা করো, দখলদারদের উচ্ছেদ করো'.হাইকোর্টের আদেশ অমান্য করে, রাজধানীর ধানমন্ডি খেলার মাঠটি দখলে রাখার প্রতিবাদে এমন অনেক প্ল্যাকার্ড হাতে এক কাতারে দাঁড়িয়েছিল এলাকার শিশু থেকে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা। সঙ্গে ছিল লেটস্ গো-অন ফাউন্ডেশন, বেলা, বাপা, গ্রীণ ভয়েজ, আইএবি ও সুজনের মতো সংগঠনগুলো। দাবি, সবার জন্য খুলে দেওয়া হোক ধানমন্ডি খেলার মাঠ।

মানবাধিকারকর্মী খুশি কবির বলেন, 'আমাদের দাবি ধানমন্ডি মাঠটি উম্মুক্ত থাকবে, বাচ্চারা খেলবে, জনগণের সঙ্গে আলোচনা না করে তারা নিজ উদ্যোগে করবে নিজে সিদ্ধান্ত নিবে এটি আমরা জানি না।'

আর বেলার নির্বাহী পরিচালক রেজওয়ানা হাসান বলেন, 'সরকার একটি নির্দষ্ট সময়ের মধ্যে এই মাঠ দখলে না নিলে এলাকাবসীদের সঙ্গে নিয়ে আমরা নিজেরাই এই মাঠ দখলে নিবো।'

বর্তমানে মাঠটি দখলে রয়েছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের। ক্লাব কতৃর্পক্ষ বলছে , সরকারের পক্ষ থেকে চলা উন্নয়ন কাজ শেষ হলে তারা সবার জন্য মাঠটি খুলে দেবে। মাঠ দখলে রাখার বিষয়টি ভুল বোঝাবুঝি বলেও মন্তব্য করেন তারা।

এই বিষয়ে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের পরিচালনা পরিষদের সদস্য আব্দুল গফফার বলেন, 'এটি সরকারি খরচেই করা হচ্ছে, আমরা পরিবেশের বিরুদ্ধে না, এটি উম্মুক্ত করবো একটি সময় পরে, নিয়মের মধ্যে এনে, এটি ধানমন্ডিবাসীর মাঠ, এটি সকলের জন্য উম্মুক্ত থাকবে, এখন এটি খুলে দিলে টোকাইরা এসে মাঠটি নষ্ট করে ফেলবে।'

সমাবেশে ধানমন্ডির বাসিন্দা ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন বিশিষ্টজনরা। ২০১৩ সালে হাইকোর্ট ধানমন্ডি মাঠের অবৈধ স্থাপনা অপসারণ ও সবার জন্য উন্মুক্ত রাখার নির্দেশ দেন।